‘‌আ. লীগ সিপিবির রূপকল্প চুরি করে বড়-বড় কথা বলছে’

0
79

nazrul_292508নিউজ ডেস্ক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ সিপিবি’র করা রূপকল্প ২০২১ চুরি করে তা বাস্তবায়ন করছে। তারাই আবার বড়-বড় কথা বলছে। আমরা কারো রূপকল্প বা ভিশন চুরি করিনি।’

রোববার সন্ধ্যায় রংপুর জেলা ও মহানগর বিএনপির আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আগামী নির্বাচনে বিএনপিকে ক্ষমতায় আনতে দলের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব নিরসন করে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের আহ্বান জানান নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, বিএনপির ২০৩০ সালের ভিশনে দেশের উন্নয়নের সঠিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ বলে বেড়াচ্ছে- ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি না এসে ভুল করেছে, এটা ঠিক নয়। আমরা যা করেছি সঠিক করেছি। কারণ জনগণের ভোটে এ সরকার নির্বাচিত হয়নি। বেশিরভাগ এমপি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে।

নজরুল বলেন, বর্তমান সরকার গুম খুনের রাজনীতি করে টিকে রয়েছে। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। আর বিএনপি গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করেছে। বর্তমান সরকার প্রতিহিংসার রাজনীতি করে বিএনপি নয়। বিএনপি সব সময় জনগণের কল্যাণে কাজ করে। বিএনপির রাজনীতি জনগণের কল্যাণের রাজনীতি। আর এজন্যই আওয়ামী লীগ বিএনপিকে ভয় পায়।

আওয়ামী লীগের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বিএনপির এ নেতা বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন দিন, তখনই পরীক্ষা হয়ে যাবে জনগণ কাদের প্রতি আস্থাশীল। সেটা দিতে আপনারা ভয় পান। ভোট চুরি করে ক্ষমতায় গিয়ে এখন বড়-বড় কথা বলছেন। এটা আপনাদের মুখে মানায় না।

‘১৯৭৫ সালে বিএনপি গণতন্ত্রকে উদ্ধার করেছে। সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করেছে। তারাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করে এখন বড়-বড় বুলি আওড়াচ্ছে। সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচন হলে বিএনপি রংপুর অঞ্চলে ভালো করবে। কারণ এক সময় রংপুর অঞ্চলের ১৮টি আসনের মধ্যে ১৬টি বিএনপি পেয়েছিল’- যোগ করেন নজরুল ইসলাম।

তিনি দ্বন্দ্ব সংঘাত ভুলে গিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করার আহবান জানান। যাতে আগামী নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় আসতে পারে।

বেগম জিয়ার নামে একটি মামলাও প্রত্যাহার করা হয়নি অথচ শেখ হাসিনার নামে সব মামলাই প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

নজরুল বলেন, মামলায় জড়িয়ে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে জেল দিয়ে নির্বাচনের স্বপ্ন আওয়ামী লীগের পূরণ হবে না। বিএনপি অনেক সংগঠিত।

কর্মী সভায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের বক্তব্যে বর্তমান জেলা ও মহানগর নেতাকর্মীদের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

সভায় বেশ কয়েকজন বক্তা বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রামে কমিটির নেতাদের দেখা যায় না। কোনো কর্মী মামলায় জেলে গেলে তাদের খোঁজ খবরও তারা নেন না। তাদের নামে মামলাও নেই। অথচ মঞ্চে কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে বড়-বড় কথা বলেন। এসব নেতা বাদ দিয়ে নতুন করে ত্যাগী নেতাদের দিয়ে কমিটি গঠন করার আহ্বান জানানো হয়।

মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফ্ফর হোসেনের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে কর্মী সভায় বক্তব্য রাখেন- বিএনপির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীল আলম, কেন্দ্রীয় সদস্য নূর মোহাম্মদ মণ্ডল, জেলা বিএনপির সভাপতি এমদাদুল হক ভরসা, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, শাহিদা রহমান জোসনা, অধ্যাপক পরিতোষ চক্রবর্তী, আমিনুর ইসলাম রাঙ্গা, যুবদল সভাপতি নাজমুল আলম নাজু, ছাত্রদল মহানগর সম্পাদক জাকারিয়া ইসলাম প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here