‘২ কোটি ৯০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হচ্ছে’

0
256

145kamalঢাকা: পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আমাদের দেশের ২ কোটি ৯০ লাখ কর্মক্ষম মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা আমাদের সবচেয়ে বড় লক্ষ্যে, আমরা এ লক্ষ্যে দ্রুত বাযস্তবায়ন করে দেখাব। তবে সরকারের পরিকল্পনা হচ্ছে দেশের প্রতিটি মানুষকে উন্নয়নের মূলস্রোতধারায় সম্পৃক্ত করা।

শনিবার গান্ধী আশ্রম ট্রাস্ট আয়োজিত মহাত্মা গান্ধীর ১৪৭তম জন্মজয়ন্তী এবং সমাজ পরিবর্তনে যুব সমাজের ভূমিকা ও গান্ধী দর্শন শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন সফলতার জাদুরকাঠি হচ্ছে কর্মক্ষম তরুণ জনগোষ্ঠী। একটি জাতির এগিয়ে যাওয়ার অন্যতম উপাদান হচ্ছে মানবসম্পদ। মানবসম্পদ উন্নয়নে যথাযথ পরিকল্পনার ফলে দেশে শতকরা ৯৮ ভাগ ছেলে-মেয়ে স্কুলমুখি হয়েছে। শতকরা ১০ভাগ তরুণ কারিগরি শিক্ষা গ্রহণ করেছে যা গত ৮ বছর আগেও শতকরা একভাগেরও কম ছিল।

তিনি বলেন, মানবসম্পদ উন্নয়নে বিদ্যমান ব্যবস্থা অব্যহত থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতির দেশ। বর্তমান সরকার যে ভাবে দেশ পরিচালনা করছে তাতে আগামীন কয়েক বছরের মধ্যে দেশে কোন দরিদ্র- ক্ষুধা থাকবে না।

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, গান্ধী ছিলেন একজন মহান দার্শনিক। তিনি নারীর ক্ষমতায়ন, শিক্ষা বিস্তার এবং দারিদ্র বিমোচনে সমাজের অবহেলিত ও বঞ্চিত শ্রেণির মানুষদের সাথে নিয়ে অহিংস সংগ্রাম করেছেন। তিনি প্রায় শত বছর আগে উপলব্ধি করেছিলেন, মানব সম্পদ উন্নয়ন ছাড়া জাতীয় উন্নয়ন সম্ভব নয়।
তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন গান্ধির নিজের হাতে চরকা দিয়ে কাপড় বুনে কুমিল্লায় খাদি শিল্পের যে যাত্রা শুরু করেছিলেন তা মানব সম্পদ উন্নয়নে অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে কাজ করছে।

গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের সভাপতি ড. দেবপ্রিয় ভট্রাচার্য এর সঞ্চালনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন, বাংলাদেশে বৃটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেক, ইউএনডিপি বাংলাদেশ অফিসের কান্ট্রি ডিরেক্টও নিক বেরেসফোর্ড প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here