১০ অক্টোবর ঢাকায় আসছেন চীনের প্রেসিডেন্ট

0
686

xiআন্তর্জাতিক ডেস্ক: চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং আগামী ১০ অক্টোবর তিনদিনের সফরে ঢাকায় আসছেন। চীনা প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরের মধ্য দিয়ে ঢাকা-বেইজিং দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে আরও গতি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। বিশেষ করে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরও বাড়বে। এদিকে চীনা প্রেসিডেন্টের সফরের আগেই দুই দেশের মধ্যে যৌথ অর্থনৈতিক কমিশনের বৈঠক হবে।

আগামী ১২ অক্টোবর পর্যন্ত ঢাকা সফরকালে শি জিনপিং বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করবেন। সে সময় দুই দেশের মধ্যে প্রায় হাফ ডজন চুক্তি করার জন্য প্রস্তুতি চলছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট কূটনৈতিক সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

চীনের প্রেসিডেন্টের সফরকালে দু’দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক, বাণিজ্য, বিনিয়োগ, অবকাঠামো ও সামরিক সহযোগিতার বিষয়গুলো গুরুত্ব পাবে। সফরকালে চীনের প্রেসিডেন্ট কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করতে পারেন বলে জানা গেছে। চীনের সহযোগিতায় এ টানেল নির্মাণের জন্য ইতোমধ্যে দু’দেশের সঙ্গে একটি চুক্তিও হয়েছে। এ টানেলের মূল দৈর্ঘ্য হবে তিন হাজার ৪০০ মিটার।

এ ছাড়া টানেলের পশ্চিম পাশে ৭৪০ মিটার এবং পূর্ব পাশে ৪৫২ মিটার দীর্ঘ সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে। চলতি বছর শুরু হয়ে এর নির্মাণকাজ শেষ হবে ২০২০ সালের ডিসেম্বরে। নির্মাণে খরচ পড়বে সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে চীন দেবে সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকা। বাকি খরচ বাংলাদেশ সরকার বহন করবে।

এদিকে চীনের উদ্যোগে বাংলাদেশে একটি বিনিয়োগ পার্ক গড়ে তোলার বিষয়ে আলোচনা চলছে। বিনিয়োগ পার্ক নির্মাণের বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা চলছে। চীনা প্রেসিডেন্টের ঢাকা সফরের সময় বিষয়টি চূড়ান্ত হতে পারে। চীন ইতোমধ্যে বাংলাদেশে সাতটি বড় বড় সেতু নির্মাণ করে দিয়েছে। প্রেসিডেন্টের আসন্ন বাংলাদেশ সফরকালে আরও চারটি বৃহৎ গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হতে পারে।

এছাড়া বঙ্গোপসাগরের সোনাদিয়ায় একটি গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করতে চীন দীর্ঘদিন ধরেই আগ্রহ ব্যক্ত করে আসছে। এ ইস্যুতে বাংলাদেশ এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। অবশ্য চীনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তৃতীয় কোনো দেশকে যুক্ত করা হলেও গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণে আগ্রহী দেশটি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY