হ্যান্ডস-অন রিভিউ: Huion 1060 Plus

0
399

Capture_4কিছুদিন আগেই আমি ‘গ্রাফিক্স ট্যাবলেট বৃত্তান্ত‘ নামের গ্রাফিক্স ট্যাবলেট সম্পর্কিত একটি ব্লগ লিখেছিলাম যেখানে আমি চেষ্টা করেছিলাম গ্রাফিক্স ট্যাবলেটের সব খুঁটিনাটিগুলো আপনাদের জানাতে। কেননা, আমাদের দেশে এই ডিভাইসটি  বর্তমানে ব্যবহার হলেও নন-ইউজার অনেকের কাছেই এটি এখনোও সম্পূর্ণ অপরিচিত একটি ডিভাইস। এমনকি আইটি রিলেটেড অনেক ছাত্রছাত্রীরাও এই ডিভাইসটি সম্পর্কে অজ্ঞ! তাই চেষ্টা করেছিলাম লেখাটির মাধ্যমে সবাইকে একটি বেসিক ধারণা প্রদান করতে যেন অন্তত ডিভাইসটি কী এবং এটি কীভাবে কাজ করে থাকে তার একটা সাধারণ ধারনা অন্তত সবার মধ্যে তৈরি হয়। যারা এখনও পূর্বের লেখাটি পড়েননি তারা এখনই পড়ে আসতে পারেন ‘গ্রাফিক্স ট্যাবলেট বৃত্তান্ত‘ ব্লগটি।

যাই হোক, গ্রাফিক্স ট্যাবলেট সম্পর্কে খুব বেশি রিসোর্স বাংলায় না থাকায় আমি চিন্তা করছি এখন থেকে ধীরে ধীরে হলেও যদি গ্রাফিক্স ট্যাবলেট সম্পর্কিত তথ্যবহুল কিছু ব্লগ লেখা যায় বা কিছু হ্যান্ডস-অন-রিভিউ শেয়ার করা যায় আপনাদের সাথে তাহলে নতুন যারা আছেন তাদের এই ডিভাইসটি সম্পর্কে জানতে এবং কেনার সময় দ্রুত এবং নির্ভুলভাবে সিদ্ধান্ত নিতে সহজ হবে। আর এরই ধারাবাহিকতায় আজকে আপনাদের সামনে নিয়ে এলাম চমৎকার একটি গ্রাফিক্স ট্যাবলেট Huion 1060 Plus এর সংক্ষিপ্ত হ্যান্ডস-অন রিভিউ। চলুন, অসাধারণ এই বাজেট পেন ট্যাবলেটির সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক আজ।

 

HUION 1060 PLUS 

Huion ব্র্যান্ডের মিড রেঞ্জের এই গ্রাফিক্স ট্যাবলেটটি গ্রাফিক্স ট্যাবলেট ব্যবহারকারীদের মাঝে বেশ জনপ্রিয়। আগেই বলেছি আমাদের দেশে বা বাংলায় গ্রাফিক্স ট্যাবলেট সম্পর্কিত খুব একটা রিসোর্স না থাকায় আপনার কাছে এই ‘জনপ্রিয়তার’ বিষয়টি হয়ত চোখে পড়েনা তবে সত্যিকার অর্থেই এই দামের মধ্যে এমনকি Wacom এর গ্রাফিক্স ট্যাবলেটগুলোকেও স্পেসিফিকেশনের দিক থেকে ভালোই পিছে ফেলে দিতে সক্ষম ডিভাইসটি। চলুন, ডিভাইসটি সম্পর্কে ধাপে ধাপে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

(Huion 1060 Plus গ্রাফিক্স ট্যাবলেট) 

 

আন-বক্সিং / প্যাকেজিং 

Wacom এর এই মূল্যের ডিভাইসগুলোর সাথে তুলনা করলে Huion 1060 Plus ডিভাইসটির প্যাকেজিং-কে প্রিমিয়াম প্যাকেজিং হিসেবে আখ্যায়িত করলেও খুব একটা ভুল হয়না। চমৎকার প্যাকেজিং এই ডিভাইসটি। ডিভাইসটি আন-বক্স করলে আপনি বক্সের ভেতরে পাবেন,

  • Huion 1060 Plus পেন ট্যাবলেট।
  • একটি শুভেচ্ছা কার্ড।
  • একটি ইউজার ম্যানুয়াল (উইন্ডোজ এবং ম্যাক ব্যবহারকারীদের জন্য)।
  • একটি কুইক ইন্সটলেশন গাইড।
  • একটি ড্রাইভার সিডি।
  • একটি Huion পেন।
  • চারটি এক্সট্রা নিব সহ একটি পেন হোল্ডার।
  • একটি ডাটা ক্যাবল।
  • পেন চার্জিং ক্যাবল।

 

গ্রাফিক্স ট্যাবলেট 

১০x৬.২৫ ইঞ্চি আকারের অ্যাকটিভ এরিয়া বিশিষ্ট চমৎকার এই ডিভাইসটিতে স্টাইলাস ব্যবহারের সময় আপনি ভুলেই যাবেন যে আপনি কোন মিডিয়ামে কাজ করছেন। অ্যাকটিভ এরিয়া বড় হওয়ার কারণে ব্যবহারের সময় একটি এ৪ সাইজের ট্র্যাডিশনাল কাগজের ল্যান্ডস্কেপ ভার্সনের মতই মনে হয় এই পেন ট্যাবলেটটিকে। ৫০৮০ এলপিআই রেজ্যুলেশন বিশিষ্ট এই ডিভাইসটির রিডিং হাইট মাত্র ০.৪ ইঞ্চি। চমৎকার এই ডিভাইসটিতে বাড়তি সুবিধা হিসেবে রয়েছে একটি মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট যার সাথে আপনি একটি ক্লাস ১০-এর ৮ গিগাবাইটের মেমরি কার্ড বিনামূল্যে পাবেন। আপনি আপনার কাজগুলো চাইলে এই মেমরির মধ্যেও সংরক্ষণ করতে পারেন ইচ্ছেমত; ভয় নেই, এই মাইক্রোএসডি কার্ড স্লটটিতে আপনি ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

(ছবিটি ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত) 

Huion 1060 Plus ট্যাবলেটটিতে রয়েছে ১২টি এক্সপ্রেস কী যে কী-গুলো আপনি ইচ্ছেমত কাস্টোমাইজ করে নিতে পারবেন যা সত্যিকার অর্থেই কাজের গতি বাড়িয়ে দেয়। ডিভাইসটির ড্রাইভার ইন্সটল করার পর পরই আপনি আপনার কম্পিউটারে একটি গ্রাফিক্স ট্যাবলেটের ছোট্ট ইন্টারফেস দেখতে পাবেন যার মাধ্যমে আপনি এই এক্সপ্রেস কী-গুলো কাস্টোমাইজ করতে পারবেন। শুধুমাত্র এক্সপ্রেস কী-ই নয় বরং ট্যাবলেটের অ্যাকটিভ এরিয়াও নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন এই ইন্টারফেসটি থেকে।

 

স্টাইলাস / পেন

গ্রাফিক্স ট্যাবলেটটির সাথে আপনি পাবেন একটি রিচার্জেবল Huion স্টাইলাস যা এক চার্জেই প্রায় ৭/৮ দিন টানা ব্যাক-আপ দিতে সক্ষম। পেনটির উল্লেখযোগ্য কিছু ফিচার যা না বললেই নয় তা হচ্ছ,

 

  • চমৎকার প্রেশার সেন্সিটিভিটি – স্টাইলাসটিতে রয়েছে ২০৪৮ লেভেলের প্রেশার সেন্সিটিভিটি যার ফলে আপনি পেনটিকে ঠিক একটি পেন্সিলের মত করেই ব্যবহার করতে পারবেন। অর্থাৎ,  হালকা প্রেসে চিকন এবং হালকা দাগ এবং ভারি প্রেসে মোটা এবং গাড় দাগ।
  • দুটি বাটন – পেনটির পাশে রয়েছে দুটি বাটন যা ডিফল্টভাবে মাউসের লেফট এবং রাইট বাটন হিসবে কাস্টোমাইজ করা থাকলেও আপনি ইচ্ছেমত এগুলোকে কাস্টোমাইজ করে নিতে পারবেন।
  • অটো স্লিপ ফাংশন – পেনটি আপনি ব্যবহার না করে রেখে দিলে অর্থাৎ পেনটি অব্যবহারিত অবস্থায় থাকলে একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর স্টাইলাসটি স্লিপ মোডে চলে যায় স্বয়ংক্রিয় ভাবেই যার ফলে ব্যাটারি অপচয় হয়না।

(স্ট্যাইলাস, Huion 1060 Plus)

 

পেন হোল্ডার

পেন হোল্ডারটি শুধু কিন্তু পেন রাখার জন্যেই তৈরি করা হয়নি বরং এই পেন-হোল্ডারটি মাঝ বরাবর খুললেই আপনি পাবেন চারটি বাড়তি নিব এবং একটি নিব এক্সট্র‍্যাক্টিং টুল। একেকটি নিব রাফ ব্যবহারে প্রায় ৩-৪ মাস পর্যন্ত ব্যাক-আপ দিয়ে থাকে ফলে সর্বমোট ৫টি নিব দিয়ে আশা করছি একজন ব্যবহারকারীর এক-দেড় বছর সহজেই কেটে যাবে। ভাবছেন, ফুরিয়ে গেলে কী করবেন? চিন্তা নেই, বাজারে একেকটি নিব আমার জানামতে ৫০০ টাকা করে বিক্রি হয়ে থাকে(কিছুটা কম বেশি হতে পারে)।

 

(পেন হোল্ডার)

 

(এক্সট্রা চারটি নিব এবং নিব এক্সট্র্যাক্টিং টুল) 

 

ইন্টারফেস 

ডিভাইসটির ড্রাইভার ইন্সটল করার পর আপনি গ্রাফিক্স ট্যাবলেটটি কাস্টোমাইজ করার জন্য একটি সিম্পল ইন্টারফেস পাবেন যে ইন্টারফেসটি ব্যবহার করে সহজেই আপনি স্টাইলাসের ফার্স্ট এবং সেকেন্ড বাটন সহ, স্টাইলাসের সেন্সেটিভিটি, স্ক্রিন সেটিংস, পেন প্রেশার টেস্ট এবং ট্যাবলেটের ১২টি এক্সপ্রেস কী কাস্টোমাইজ করতে পারবেন।

 

( মূল সফটওয়্যার ইন্টারফেস। ) 

 

 

(পেন প্রেশার টেস্ট ইন্টারফেস।) 

 

 

(অ্যাকটিভ এরিয়া সিলেকশন এবং এক্সপ্রেস কী কাস্টোমাইজেশন ইন্টারফেস।) 

ডিভাইসটির ভালো দিক 

  • বড় অ্যাকটিভ এরিয়া।
  • ১২-টি এক্সপ্রেস কী।
  • রিচার্জেবল পেন।
  • ২০৪৮ লেভেল প্রেশার সেন্সেটিভিটি।
  • ৫০৮০ এলপিআই রেজ্যুলেশন।
  • ৮ গিগাবাইট এক্সটারনাল স্টোরেজ।
  • চমৎকার মূল্য

ডিভাইসটির খারাপ দিক 

  • আকারে কিছুটা বড় হওয়ায় বহন করা কিছুটা হলেও বিরক্তিকর।
  • অ্যাকটিভ এরিয়া এবং এক্সপ্রেস কী ছাড়াও চারপাশে অতিরিক্ত ব্যাজেল।
  • ট্যাবলেটটিতে কোন অন-অফ কী নেই।

 

প্রাপ্তিস্থান 

আপনি চাইলে সহজেই দেশের বাইরে থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে যে কোন ধরণের গ্রাফিক্স ট্যাব আনিয়ে নিতে পারেন তবে দেশ থেকে কিনতে চাইলে চলে যেতে পারেন এলিফেন্ট রোডের মাল্টিপ্লানের (কম্পিউটার সিটি সেন্টার)মাল্টিমিডিয়া কিংডমে। আমার জানামতে একমাত্র তাদের কাছেই রয়েছে Huion ছাড়াও বেশ কিছু ব্র্যান্ডের গ্রাফিক্স ট্যাব এবং বিভিন্ন ধরণের গ্রাফিক্স কার্ড সম্পর্কিত এক্সেসরিজের বিশাল কালেকশন। প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট থেকে আপনার অ্যাভেইল্যাবল গ্রাফিক্স ট্যাবগুলোর মূল্য দেখে নিতে পারেন অথবা তাদের ফেসবুক পেজ থেকেও আপনারা জেনে নিতে পারেন গ্রাফিক্স ট্যাবলেট সম্পর্কিত যে কোন ধরণের তথ্য। এছাড়াও  Huion Bangladesh পেজটি থেকেও আপনি Wacom এবং Huion-এর গ্রাফিক্স ট্যাবলেটগুলো সম্পর্কে বিভিন্ন ধরণের তথ্য পাবেন।

 

শেষে বলতে চাই, যে খারাপ দিকগুলোর কথা আমি লিখেছি সেগুলোকে খুব বড় করে দেখারও কিছু নেই, তবুও লেখা কেননা আমার মতে এই সমস্যাগুলো দূর করা গেলে এই ডিভাইসটিকে শতভাগ পারফেক্টে একটি ডিভাইস বলা যেত। তবে এই সমস্যাগুলো থাকার প্ররেও একই স্পেসিফিকেশনের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ট্যাবলেটগুলোর সাথে বিবেচনায় এই ট্যাবলেটটি বেশ এগিয়ে থাকবে বলেই আমি মনে করি। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here