শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টায় ১১ জনের ২০ বছর কারাদণ্ড

0
115

ঢাকা: রাজধানীর ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা ও বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে করা দুটি মামলার রায় ঘোষণা হয়েছে। রায়ে ১১ জনকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।  আর হুমায়ুন কবির ওরফে কবির নামে একজনকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

রোববার পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে ও ঢাকা মহানগর আদালতে ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. জাহিদুল কবির ২৮ বছর আগে এরশাদ সরকারের আমলে করা মামলা দুটির রায় ঘোষণা করেন। বেলা  ১১টা ৫৯ মিনিটে বিচারক এজলাসে ওঠেন। বেলা ১২টা ১ মিনিট থেকে রায় পড়া শুরু করেন। রায়ের শুরুতে ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরেন বিচারক। দুপুর ১টার দিকে তিনি রায় ঘোষণা করেন।

গত ১৬ অক্টোবর মামলা দুটির যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের জন্য দিন ধার্য করা হয়েছিল।

১৯৮৯ সালের ১০ আগস্ট মধ্যরাতে ফ্রিডম পার্টির নেতাকর্মীরা শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের বাসভবনে গুলি ও গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। ঘটনার সময় তিনি ওই বাড়িতেই ছিলেন। এ ঘটনায় বাড়ির নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম মামলা করেন। মামলার এজাহারে বলা হয়, ফ্রিডম পার্টির সদস্য কাজল ও কবিরের নেতৃত্বে ১০ থেকে ১২ জনের একটি দল শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলিবর্ষণ ও বোমা হামলা করে। হামলাকারীরা ‘কর্নেল ফারুক-রশিদ জিন্দাবাদ’ স্লোগান দিতে দিতে পালিয়ে যায়।

মামলার তদন্ত শেষে ১৯৯৭ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। ২০০৯ সালের ৫ জুলাই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে বিচারকাজ শুরু হয়। মামলার আসামিরা হলো গোলাম সারোয়ার ওরফে মামুন, জজ মিয়া, ফ্রিডম সোহেল, সৈয়দ নাজমুল মাকসুদ মুরাদ, গাজী ইমাম হোসেন, খন্দকার আমিরুল ইসলাম কাজল, মিজানুর রহমান, হুমায়ন কবির, শাজাহান বালু, লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুর রশীদ, জাফর আহম্মদ ও এইচ কবির। আসামিদের মধ্যে প্রথম চারজন কারাগারে, শেষের তিনজন পলাতক এবং অপর আসামিরা জামিনে রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here