রোহিঙ্গা সংকট অবসানে ‘বলিষ্ঠ ও দ্রুত’ পদক্ষেপ চান ট্রাম্প

0
78

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সংকট অবসানে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে ‘বলিষ্ঠ ও দ্রুত’ পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বুধবার প্রেসিডেন্টের এ আহ্বানের কথা জানিয়েছেন বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়।

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বক্তব্যে পেন্স মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রতি অবিলম্বে সহিংসতা বন্ধের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, এটা করা না হলে ‘ঘৃণা ও বিশৃঙ্খলার বীজ বপন করা হবে, যা প্রজন্মের পর প্রজন্ম ওই অঞ্চলকে গ্রাস করতে পারে এবং আমাদের সবার জন্যই হুমকি হয়ে উঠতে পারে।’

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রয়টার্সকে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, জাতিসংঘের সংস্কার বিষয়ে সোমবার এক বৈঠকে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে রোহিঙ্গা সংকট তুলে ধরলেও ট্রাম্প এ নিয়ে কোনো কথা বলেননি।

তবে রয়টার্সকে হোয়াইট হাউসের একজন কর্মকর্তা বলেন, ট্রাম্প রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আগ্রহী। কেউ তার কাছে বিষয়টি তুলে ধরলে তিনি কথা বলবেন। মঙ্গলবার ট্রাম্প জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ৪২ মিনিট ভাষণ দিলেও তাতে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ ছিল না। অবশ্য মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাখাইনে রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞের বিরুদ্ধে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। তিনি সুচির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

নিষেধাজ্ঞা চাইলেন জাতিসংঘ কর্মকর্তা : মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতনের প্রেক্ষাপটে দেশটির ওপর জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন সংস্থাটির মানবাধিকারবিষয়ক প্রধান জেইদ রাদ আল-হুসেইন।

এর আগে একটি রোহিঙ্গা সংগঠন এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচ মিয়ানমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি জানিয়েছে। তবে জাতিসংঘের একজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা এই প্রথম তাদের দাবির প্রতিধ্বনি করেছেন। জেইদ রাদ আল-হুসেইনকে উদ্ধৃত করে বিবিসি জানায়, রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে পুরোপুরি নির্মূল করার লক্ষ্যে কয়েকজন রোহিঙ্গা চরমপন্থীর কার্যক্রমের উদাহরণ একটা অজুহাত হিসেবে দেখানো হচ্ছে।

জেইদ রাদ আল-হুসেইন এর আগে বলেছিলেন, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর যে জাতিগত নির্মূল অভিযান চলছে তা ‘পাঠ্যপুস্তকের দৃষ্টান্ত’। তার কথায় সমর্থন জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস।

সম্প্রতি ওআইসির কাছে পেশ করা এক প্রতিবেদনে ৬১টি রোহিঙ্গা কমিটির সমন্বয়ে গঠিত একটি সংগঠন এবং গত সোমবার হিউম্যান রাইটস ওয়াচ মিয়ানমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি জানিয়েছে। রাখাইনে প্রায় ৫০০০ রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছন এক রোহিঙ্গা নেতা। জীবন বাঁচাতে অন্তত সোয়া চার লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here