রেকর্ডগড়ে বায়ার্নকে হারাল রিয়াল

0
57

স্পোর্টস ডেস্ক: ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে ১৫০ জয় পূর্ণ হলো রিয়াল মাদ্রিদের। বুধবার আসরের সেমিফাইনাল প্রথম লেগে জয় নিয়ে এ মাইলফলক স্পর্শ করে স্প্যানিশ জায়ান্টরা।

আবারো সেই ঘটনারই পুনরাবৃতি ঘটল। গত বছরের এপ্রিলের এক বুধবারই ছিল দিনটা। এই আলিয়াঞ্জ অ্যারেনাতেই রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হয়েছিল বায়ার্ন মিউনিখ, চ্যাম্পিয়নস লিগের গত আসরের সেমিফাইনালে। বাভারিয়ানদের কোচের দায়িত্বে তখন কার্লো আনচেলোত্তি, গোলবারে মানুয়েল নয়ার। এবারে কোচ ইয়ুপ হেইঙ্কেস, গোলবারে উলরিখ। দলেও খানিকটা অদলবদল। কিন্তু সেই একই ভাগ্য। এগিয়ে গিয়েও ২-১ গোলের হার। মাঠের খেলায় দাপট দেখিয়ে গোলসংখ্যায় পিছিয়ে থাকা।

আবারো ঠিক একই ভাবে বায়ার্নকে হারাল রিয়াল। প্রতিপক্ষ মাঠে প্রথম লেগে পিছিয়ে পরেও বায়ার্ন মিউনিখকে ২-১ গোলে হারায় রিয়াল মাদ্রিদ। আসরের ইতিহাসে ২৪৯ ম্যাচ খেলেছে রিয়াল। এর মধ্যে ১৫০ ম্যাচে জয়ের বিপরীতে তারা হার দেখেছে ৫১ ম্যাচে। বাকি ৪৮ ম্যাচ ড্র।

গেল মৌসুমে রোনালদো একাই জোড়া গোল করে গড়ে দিয়েছিলেন ম্যাচের ভাগ্য। এবার রোনালদো নিষ্প্রভ থাকলেও মার্সেলো আর বদলি মার্কো আসেনসিওর গোলই প্রতিপক্ষের মাঠে জিতিয়ে দিল লস ব্লাংকোদের। টানা তৃতীয় ফাইনাল আর রিয়াল মাদ্রিদের মাঝে এখন স্রেফ একটি ম্যাচ, যেখানে এগিয়ে রিয়ালই।

দ্বিতীয় সর্বাধিক ১৩৮ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড রয়েছে আসরের চার বারের শিরোপা জয়ী এফসি বার্সেলোনার। ১২৮ জয় নিয়ে তিন নম্বরে বায়ার্ন মিউনিখ। বুধবারের ম্যাচ নিয়ে বাভারিয়ানদের বিপক্ষে টানা ষষ্ঠ জয় পেলো আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ। যা আসরের ইতিহাসে কোনো দলের বিপক্ষে রিয়ালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ টানা ম্যাচ জয়ের রেকর্ড। এর আগে ২০১০-১১ ও ২০১১-১২’র চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ডাচ ক্লাব আয়াক্স আমস্টারডামের বিপক্ষে টানা ছয় ম্যাচে জয়ের কীর্তি গড়ে মাদ্রিদিস্তারা।

অন্যদিকে রিয়ালের বিপক্ষে শেষ তিন ম্যাচে এগিয়ে থেকেও হারের স্বাদ পেলো বায়ার্ন মিউনিখ। তবে, এদিন রিয়ালকে দুই গোল উপহার দিয়েছে বায়ার্ন, এমনটাই দাবি কোচ ইয়ুপ হেইঙ্কেসের। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে বায়ার্ন কোচ বলেন, গুরুতর দুই ভুল করে আমরাই তাদের দুই গোল উপহার দিয়েছি। তাছাড়া আমরা প্রচুর সুযোগও পেয়েছি। কিন্তু সেগুলো কাজে লাগাতে পারিনি। কাজেই আমাদের এই হারে বিস্ময়ের কিছু নেই। প্রতিপক্ষকে এভাবে গোল উপহার দিলে আপনাকে হারতেই হবে। বুধবার রিয়ালের হয়ে গোল দুটি করেন মার্সেলো ও মার্কো আসেনসিও।

নিজ মাঠ আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় ম্যাচের অষ্টম মিনিটে বড় ধাক্কা খায় বায়ার্ন। চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন ডাচ ফরোয়ার্ড আরিয়েন রোবেন। তার বদলি হিসেবে নামেন স্প্যানিয়ার্ড ফরোয়ার্ড থিয়াগো আলকানতারা। পরে ২৮তম মিনিটে জোড়ালো শটে গোল করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন জার্মান তারকা জশুয়া কিমিক। এর ছয় মিনিট পর চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন বায়ার্ন ডিফেন্ডার জেরম বোয়াটেংও।

৪৪তম মিনিটে দানি কারভাহালের পাসে গোল করে রিয়ালকে সমতায় ফেরান ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মার্সেলো। আসরে এটা তার তৃতীয় গোল। ৫৭ মিনিটে লুকাস ভাসকেজের পাসে সফরকারীদের জয়সূচক গোল এনে দেন স্প্যানিয়ার্ড মিডফিল্ডার মার্কো আসেনসিও। আগামী মঙ্গলবার নিজ মাঠে সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগে বায়ার্ন মিউনিখের মুখোমুখি হবে রিয়াল মাদ্রিদ।

চ্যাম্পিয়ন্স লীগে সর্বাধিক জয়
রিয়াল মাদ্রিদ (স্পেন) ১৫০
বার্সেলোনা (স্পেন) ১৩৮
বায়ার্ন মিউনিখ (জার্মানি) ১২৮
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (ইংল্যান্ড) ১১৪
জুভেন্টাস (ইতালি) ৮৭