রানা প্লাজায় আহত কোনো শ্রমিক বেকার নেই: বিজিএমইএ সভাপতি

0
187
kaj_356-(8)_287725ঢাকা: বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, রানা প্লাজার ভবন ধসের ঘটনায় একটা লোকও পাওয়া যায়নি, যে অভিযোগ করেছে অথচ চাকরি পায়নি এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়নি। দুর্ঘটনায় আহত শ্রমিকদের ৪২ শতাংশ বেকার বলে সম্প্রতি অ্যাকশন এইড যে প্রতিবেদন দিয়েছে, তাকেও বিভ্রান্তিকর হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন তিনি।

ভবন ধসের চতুর্থ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে সোমবার জুরাইন গোরস্তানে দাফনকৃত শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া-মোনাজাত শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

দুর্ঘটনার বিচার নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, বিচারাধীন বিষয় নিয়ে বিজিএমইএর কোনো তৎপরতা থাকার কথা নয়। রানা প্লাজার অনুমতি ছিল ছয়তলা; করা হয়েছে ১০ তলা। এর জন্য মালিক সোহেল রানা, ভবন নির্মাণের অনুমতিদাতা এবং যাদের চোখের সামনে ভবন করা হয়েছে, তারা দায়ী। তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় এনে দ্রুত শাস্তি দেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, মালিক ভাইয়েরা, যারা রানা প্লাজায় ফ্লোর ভাড়া নিয়েছিলেন তাদের অপরাধ কোথায়! তাদেরকে তখন গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে নিজেদের অন্য কারখানাগুলো তারা পরিচালনা করতে পারেননি। তাদের সন্তানরা এখন না খেয়ে থাকে; পড়ালেখা করতে পারে না এবং রাস্তায় ঘুরে বেড়ায়।

অ্যাকশন এইডের প্রতিবেদন বিষয়ে সিদ্দিকুর আরও বলেন, অ্যাকশন এইড বলেছে, ৪২ শতাংশ আহত শ্রমিক কাজ পায়নি। এর সঙ্গে সম্পূর্ণ দ্বিমত পোষণ করছি। দেশে যারা শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করছে, সেসব শ্রমিক সংগঠনও কখনও এ রকম কথা বলেনি।

তিনি বলেন, বিজিএমইএ সব সময় বলেছে, কোনো শ্রমিক যদি আহত হয়ে থাকে তারা যোগাযোগ করলে চিকিৎসা করা হবে। চাকরি না পেয়ে থাকলে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। অনেকে মাঝেমধ্যে যোগাযোগ করেছেন, তাদের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিগত সময়ে একটা লোকও পাওয়া যায়নি- যে অভিযোগ করেছে অথচ চাকরি পায়নি এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়নি। সেখানে এ ধরনের প্রতিবেদন দেশের জন্য অবশ্যই ক্ষতিকর। সামনে আইএলসিসহ একাধিক আন্তর্জাতিক সভা রয়েছে। যদি বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়ানো হয়, তাহলে নিরীহ শ্রমিক ও দেশেরই ক্ষতি হবে।

এই ব্যবসায়ী নেতা বলেন, সরকার, আইএলও, বিল্স, শ্রম মন্ত্রণালয়সহ যে ট্রাস্ট ফান্ড করা হয়েছে, সেখানে এখনও টাকা জমা আছে। তাহলে কীভাবে শ্রমিকরা সহযোগিতা পাচ্ছে না- প্রশ্ন রাখেন তিনি। তাই এসব বিভ্রান্তিমূলক তথ্য না ছড়াতে সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, নিহত শ্রমিকদের প্রত্যেকের পরিবারের যতজন সদস্য আছেন, তাদের সবার জন্য প্রধানমন্ত্রী ফিক্সড ডিপোজিট করে দিয়েছেন। সেখান থেকে তাদেরকে তিনবারের মতো সহযোগিতা করা হয়।

বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, ফরিদপুরে গাছ থেকে পড়ে আহত হওয়া একজন রানা প্লাজার ভিকটিম হিসেবে দাবি করেছে। এটা একটা বেসরকারি টিভি চ্যানেলে দেখানো হয়েছে। এ রকম যদি হয়, তাদেরকে তো সহযোগিতা করা হবে না। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত ও তাদের পরিবারকে অবশ্যই সহযোগিতা করা হবে।

শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া-মোনাজাতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএর সহসভাপতি এসএম মান্নান কচি, মাহমুদুল হাসান খান বাবুসহ বর্তমান ও সাবেক পরিচালকবৃন্দ।