যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র কিনে উত্তর কোরিয়াকে প্রতিহত করুন

0
89

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জাপানকে সামরিক দিক দিয়ে শক্তিশালী করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।

তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়ার হুমকি মোকাবেলায় জাপানের উচিত যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি সামরিক রসদ কেনা। নিজেদের সীমান্তের নিরাপত্তা জাপানকেই নিশ্চিত করতে হবে বলেও মনে করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

তিনি চান, জাপানের ওপর দিয়ে উত্তর কোরিয়ার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র গুলি করে নামানোর সক্ষমতা অর্জন করুক টোকিও। খবর বিবিসি ও সিএনএনের।

এর আগে রোববার এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

‘ফুল মেজার’ টিভি শোতে তিনি বলেন, ‘উত্তর কোরিয়ার যে কোনো নেতার সঙ্গে আমাদের আলোচনায় বসতে হবে।’

সোমবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে যোগ দেন ট্রাম্প।

পাশে দাঁড়ানো আবেকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র থেকে যখন তিনি (আবে) বহু অস্ত্র কিনতে পারবেন তখন তিনি আকাশে শত্রুর ক্ষেপণাস্ত্র নামানোর সক্ষমতা অর্জন করবেন। জাপানের প্রধানমন্ত্রী বহু সামরিক রসদ কিনতে যাচ্ছেন, আর এমনটাই তার করা উচিত।’

সম্প্রতি জাপানের ওপর দিয়ে দু’বার দূরপাল্লার ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে উত্তর কোরিয়া।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ‘উত্তর কোরিয়াকে নিয়ে ধৈর্য ধরার দিন শেষ হয়ে গেছে। পিয়ংইয়ংয়ের পরমাণু কর্মসূচি সভ্য পৃথিবী ও আন্তর্জাতিক শান্তি এবং স্থায়িত্বের জন্য হুমকিস্বরূপ।’

উত্তর কোরিয়াকে মোকাবেলায় ‘সব ধরনের পদক্ষেপ আলোচনার টেবিলে রয়েছে’ বলেও মন্তব্য করেন ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের এ নীতিকে সমর্থন করে আবে বলেন, উত্তর কোরিয়াকে ধ্বংস করে দিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ‘সব ধরনের পদক্ষেপ আলোচনার টেবিলে রয়েছে’- নীতিকে আমরা সর্বদাই সমর্থন করি।

তিনি আরও বলেন, উত্তর কোরিয়ার হুমকি প্রতিহত করতে ‘গুণগত ও পরিমাণগত’ সামরিক ক্ষমতা বাড়ানোর পদক্ষেপ নিয়েছে জাপান। যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের মধ্যে সহযোগিতার ভিত্তিতে একটি শক্তিশালী যৌথ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

জাপানি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যদি প্রয়োজন পড়ে তাহলে অবশ্যই আমরা শত্রুর ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র গুলি করে নামাতে পারব।’

দু’দেশের মধ্যে কোন ধরনের সামরিক অস্ত্র বিক্রির চুক্তি হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। তবে দুই দেশের মধ্যে সামরিক সখ্য রয়েছে। জাপানে যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রিত বহু সামরিক ঘাঁটি রয়েছে।

এদিকে, জাপান নতুন করে আরোপ করা অবরোধের অংশ হিসেবে উত্তর কোরিয়ার ৩৫ গোষ্ঠী ও ব্যক্তির সম্পদ জব্দ করবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন আবে।

তিনি বলেন, ‘অপহরণ এবং পিয়ংইয়ংয়ের পরমাণু ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে সৃষ্ট সংকট নিরসনে নতুন করে আরোপ করা নিষেধাজ্ঞার অংশ হিসেবে আমরা উত্তর কোরিয়ার ৩৫ সংগঠন ও ব্যক্তির সম্পদ জব্দ করার সিদ্ধান্ত নেব।’