যুক্তরাষ্ট্রমুক্তিযোদ্ধা সংসদের জাতীয় শোক দিবস পালন

0
108

নিউইয়র্ক: ১৫ই আগষ্ট ১৯৭৫, বাঙালী জাতির ইতিহাসের জঘন্যতম এক অধ্যায়ের নাম। এদিনে যেকলঙ্কের কালিমা পুরো জাতির তিলকে নিক্ষেপ করা হয়েছে, বাঙালী জাতির মহান নেতা হাজার বছরেরশ্রেষ্ট বাঙালী জাতির পিতাকে আপন বাসভবনে পরিবারের অন্যান্য সদস্য সহ হত্যা করার মাধ্যমে এবংবাঙালী জাতিকে আবারো গোলামির শৃঙ্খলাবদ্ধ করার হীন অপপ্রয়াস চালানো হয়েছিল তা থেকে আজো আমরা বেরুতে পারিনি ।

বঙ্গবন্ধু ও তার আদর্শকে লালন করার লক্ষ্যে এই দিনটিকে যথাযথ মর্যাদায়পালনের উদ্ধ্যোগ নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা সংসদ গত ৮ আগষ্ট.মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটিরজ্যামাইকায় যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা সংসদের দোয়া ও আলোচনা সভায় যুক্তরাষ্ট্রমুক্তিযোদ্ধা সংসদের আহবায়ক ড. আবদুল বাতেনের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মশিউল আলমজগলুর সঞ্চালনায় মাধ্যমে সেই কাল রাত্রীতে শাহদাত বরণকারী বঙ্গবন্ধু, পরিবারেরসদস্যবৃন্দ ও অন্যান্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো ও এক মিনিট নিরবতা পালন হয়। সভায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুররহমানসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট নিহতদের আত্মার মাগফেরাত ও দেশজাতির কল্যাণ কামনা করেবিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা..মোঃমনির হোসেন ।

উক্ত শোক সভায় বীরমুক্তিযোদ্ধা রা বলেন আমরা মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলাম বাংলাদেশের অবিসংবাদিতনেতা বঙ্গবন্ধুর ডাকে । আমরাএই দেশের ইতিহাসের সাক্ষী, ইতিহাসের অংশ। আলোচনায় অংশগ্রহণকারী বীরমুক্তিযোদ্ধারা স্বাধীন বাংলাদশে প্রতষ্ঠিায় জাতরি জনক বঙ্গবন্ধু শখে মুজবিুর রহমানএর অবদান গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করনে। বক্তারা বলনে, ১৫ আগস্ট ১৯৭৫এর ঘটনার মাধ্যমে ঘাতকরো ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পরেছেেকন্তিু তাঁর আর্দশ ও পথ যা তনিি জাতকিে দখেয়িছেনে তা নঃিশষে করতে পারনে। তাইতো মুজিব মৃত হয়েও জীবিতকারণ মুজিব মানে লাল সবুজের পতাকা, মুজিব মানে বাংলাদেশ। মৃত মুজিব জীবিত মুজিবের চেয়েও অনেক শক্তিশালী। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত সোনার বাংলা জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সম্পন্ন করতেহবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here