মুসলমানদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আসার পথ রুদ্ধ করার ঘোষণা ট্রাম্পের

0
279

imagesজন্মভূমি প্রতিবেদকঃ ওরল্যান্ডো সমকামী নাইট ক্লাবে গুলিবর্ষণের ঘটনাকে পুঁজি করে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনান্ড ট্রাপম্প আরো উচ্চকন্ঠে মুসলমানদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আসার সব পথ রুদ্ধ করার ঘোষণা দিলেন। যুক্রাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন আইনের দোষারোপ করে ট্রাম্প আরো বললেন, ‘আমাদের উদারতার সুযোগ নিয়ে চেক পয়েন্ট পেড়িয়ে কে ঢুকছে তাও যাচাইয়ের অবকাশ নেই। ফলে আমেরিকান দুশমনরা ঢুকছে প্রতিনিয়ত। এহেন অবস্থার অবসান ঘটিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা সংহত করার স্বার্থে প্রয়োজন হলে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা খাটিয়ে নির্বাহী আদেশ জারি করাবো’।

ডোনান্ড ট্রাস্প বললেন, যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন আইন প্রেসিডেন্টকে ক্ষমতা দিয়েছে, যেকোনো ধরনের মানুষের যুক্তিরাষ্ট্রে প্রবেশের অধিকার সাসপেন্ড করার। আমি সেই ক্ষমতা বলে যুক্তিরাষ্টের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে লিপ্তদের নিষিদ্ধ করবো। ১৩ জুন সোমবার নিউ হ্যামশায়ার রাজ্যের ম্যানচেষ্টার সিটিতে সেইন্ট এনসেল্ম কলেজে এক সমাবেশে ট্রাম্প বলেন, সব মুসলমানই আমেরিকান নিরাপত্তার জন্য হুমকি।’ ট্রাম্প আমেরিকায় মুসলানদের নিষিদ্ধ করার উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমি যদি হোয়ইট হাউজের অধিষ্ঠিত হতে পারি তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী যুদ্ধে লিপ্ত সব দেশে বা অঞ্চলের মুসলমানদের যুক্তরাষ্ট্রে নিষিদ্ধ করা হবে।’ ট্রাস্প উল্লেখ করেন, আমেরিকান মুসলমানরাও সম্ভাব্য সন্ত্রাসী হামলার পূর্বভাস দেন না আইনশূঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে। ওরল্যান্ডোতে এম ভয়ঙ্কর একটি পরিস্থিতি ঘটতে যাচ্ছে সে ব্যাপারেও আগাম কোনো তথ্য তার জানানানি।’ ট্রাস্প বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা, স্বাধীনতা আর সার্বভৌমত্বের জন্য যারা হুমকি এবং একই সাথে যারা যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র রাষ্ট্রগুলোর নিরাপত্তার জন্যও হুমকিস্বরূপ, তাদের সাইকেই নিষিদ্ধ করবো।’

সৌদি ও পাক বংশেদ্ভুতরাই হুকমি
রয়টার্স জানায়, মার্কিন যক্তরাষ্ট্রের জন্য সৌদি আরব, পাকিস্তান ও সোমালিয়ান বংশোদ্ভূত অভিবাসীদের বড় হুমকি বলে মনে করছেন ট্রাস্প। নিউ হ্যাসম্পায়ারে এক সমাবেশে রোববারের হামলাকে ৯-১১ হামলার অনুরূপ উল্লেখ করে ট্রাস্প বলেন, তারা উদ্বাস্তুু স্রোতের সাথে মিশে আমাদের দেশে প্রবেশ করেছে এবং আমাদের সন্তানদের জন্য হুমকি হয়ে দেখা দিয়েছে। ট্রাস্প বলেন, হামলাকারী ওমর মতিনের মা-বাবার জন্মস্থান আফগানিস্তান, যেখানে এর আগেও যুক্তরাষ্ট্রবিরোধ ষড়যন্ত্র’ হয়েছে। আবারো মুসলমানদের জন্য অভিবাসন প্রক্রিয়ার কড়াকড়ি আরোপের কথা পুনরুল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, আমি নির্বাচিত হলে যেসব এলাকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ ও অন্য মিত্রদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের ইতিহাস আছে, তাদের জন্য অভিবাসন প্রক্রিয়া বন্ধ করবো। অন্তত যতক্ষণ না আমরা বুঝতে পারবো হুমকি শেষ হয়েছে।
এবার ওয়াশিংটন পোষ্টের বিরুদ্ধে ট্রাস্পগার্ডিয়ান জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের দৈনিক সংবাদপত্র দ্য ওয়াশিংটন পোষ্ট নির্বাচনী প্রচারণার ‘অযথার্থ’ রিপোর্ট করছে বলে অভিযোগ করেছেন ডোনান্ড ট্রাম্প। এ জন্য তিনি নিজের নির্বাচনী প্রচারণার রিপোর্ট করা থেকে ওয়াশিংটন পোষ্টেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। ট্রাস্প তার ফেসবুক পেইজে লেখেন, ট্রাস্প প্রচারণার অভূতপূর্ব অশুদ্ধ খবর প্রকাশ করার জন্য আমরা সংবাদমাধ্যম হিসেবে ওয়াশিংটন পোষ্টের যোগ্যতকেই প্রশ্ন করতে চাই।’

তিনি আরো লেখেন, তিনি বারাক ওবামার বিশেষ কোনো ভক্ত নন, কিন্তু ওয়াশিংটন পোষ্টের শিরোনামে বলায় হয়, অরল্যান্ডো বন্দুক হামলার সাঙ্গে ওবামার যোগাযোগ রয়েছে বলে ইঙ্গিত করেছেন ট্রাস্প’ যা ছিল নিতান্তই ভুল। ট্রাম্প আরো বলেন, তিনি ফক্স নিউজ চ্যানেলের কাছে দেয়া সাৎকার বলেছেন, সন্ত্রাসবাদ দমন প্রশ্ন ওবামা ‘হয় বোঝেনই না, অথবা এতই বেশি বোঝেন যা সবাই ধরতেই পারে না।’ পরে ওই শিরোনাম পরিবর্তন করে ওয়াশিংটন পোষ্ট। এ প্রসঙ্গে ওয়াশিংটন পোষ্টের মুখপাত্র এক ইমেইলে বলনে, রিপোটটির শিরোনাম প্রকাশের পর খুব দ্রুতই পরিবর্তন করা হয়েছিলা।  তা করা হয়েছিল ‘ট্রাস্পের বক্তব্য আরো যথাযথবাবে তুলে ধরা জন্য। আমরা নিজে থেকেই তা করেছি, ট্রাস্প প্রচারণার পক্ষ থেকে আমাদের কিছুই বলা হয়নি।’
এদিকে ওয়াসিংট পোষ্টের সম্পাদক মারটিন ব্যারন এক বিবৃতিতে বলেন, ট্রাস্পের গণমাধ্যম হিসেবে ওয়াশিংটন পোষ্টের যোগ্যতাকে প্রশ্ন করা বা খারিজ করা গণমাধ্যমের মুক্ত ও স্বাধীন অস্তিÍবকে বর্জন করার চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। এ প্রসঙ্গে সামাজিক মাধ্যমে সরব হয়েছেন সাংবাদিকসহ নানা ব্যাক্ত ও প। কেউ কেউ বলেছেন, ট্রাস্পের কাছে সমালোচিত হওয়া সম্পানের বিষয়।