মিয়ানমার এবং বাংলাদেশের অবস্থার মধ্যে পার্থক্য খুঁজে পান না ফখরুল

0
109

15241941_659330944191979_8911692408619979436_nঢাকা: মিয়ানমার এবং বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থার মধ্যে ‘খুব একটা’ পার্থক্য খুজে পান না বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রোববার বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ)’রোহিঙ্গা সংকট : রাস্ট্র নাকি মানবতা?’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, ২ দেশের মধ্যে খুব একটা পার্থক্যতো খুজে পাই না।

ফখরুল বলেন, মিয়ানমারে গনতন্ত্রের মানষকন্যা যখন নির্বাচনে জয় লাভ করে ক্ষমতায় এসেছে একটি ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর (রোহিঙ্গা) উপর তার সরকারের লোকেরা অমানবিক নির্যাতন চালাচ্ছে। ইতোমধ্যে কয়েকশ জীবন চলে গেছে। আমার দেশও কি এর থেকে ব্যাতিক্রম কিছু আছে? এ দেশেওতো যারা গণতন্ত্র চায় তাদেরকে হত্যা করা হচ্ছে। মিথ্যা মামলা দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, সেজন্য আমার বুঝতে কস্ট হচ্ছে, এ রাস্ট্র কোন রাস্ট্র? এ রাস্ট্রের মুল দায়িত্ব কি? মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। একই দৃশ্য আমরা দেখেছি সিরিয়াতেও। এখনও সিরিয়াতে হত্যা যজ্ঞ চলছে। একটি জাতি নিশ্চিহ্ন এর পথে।
আমরা অন্য দেশের হস্তক্ষেপ করতে পারি না, কিন্তু সেই দেশের কোন ঘটনার ফলে আমার উপর চাপ পড়ে তাহলে অবশ্যই আমাদের কথা বলতে হয়, বলেন তিনি।

তিনি বলেন, মিয়ানমারের ব্যাপারে আমাদের পরিষ্কার কথা। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়াও বলেছেন তাদেরকে আশ্রয় দেয়া হোক। একই সাথে এই সরকারকে বাধ্য করতে হবে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার জন্য। সেন্টার ফর ন্যাশনালিজম স্টাডিজ ( সি.এন.এস) আয়োজিত এ আলোচনা সভায় তিনি অভিযোগ করে বলেন, আজকে আমাদের দেশে যারা জোর করে ক্ষমতায় বসে আছে তারা মানবতাকে বুলন্ঠিত করছে। তাদের পায়ের নিচে মাটি নেই। তারা গণবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, বিএনপির ভাইচ চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্ঠা জয়নাল আবেদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান প্রমুখ।