মিজারুল কায়েসকে শেষ শ্রদ্ধা

0
111
kaj_1104_278721নিউজ ডেস্ক: ব্রাজিলে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিজারুল কায়েসের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। রোববার রাতে সাবেক এই পররাষ্ট্র সচিবের মরদেহ ঢাকায় পৌঁছার পর সোমবার সকাল ৮টায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মসজিদে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে সকাল ১০টায় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মরদেহ নেওয়া হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। মঙ্গলবার রাজধানীর বনানীতে তাকে দাফন করা হবে।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মিজারুল কায়েসের মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রীর সহকারী সামরিক সচিব লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ সাইফ উল্লাহ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, সাবেক রাষ্ট্রদূত আনোয়ারুল আলম, নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান, বিসিএস ১৯৮২ ব্যাচের পক্ষ থেকে সভাপতি মিজানুর রহমানসহ সাবেক কূটনীতিক ও সংস্কৃতিকর্মীরা। এ সময় মিজারুল কায়েসকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন তারা। এ ছাড়া বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র, ঢাকা কলেজ, ঢাকাস্থ পাকুন্দিয়া ছাত্র সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানও শ্রদ্ধা জানায়। পরে একে একে বিভিন্ন স্তরের মানুষ দুপুর ১২টা পর্যন্ত সদ্যপ্রয়াত এই কূটনীতিকের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

গত ১১ মার্চ ব্রাজিলের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মিজারুল কায়েস। রোববার রাত ১২টার দিকে কাতার এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে তার মরদেহ ঢাকায় পৌঁছে। সেখান থেকে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বনানীতে তার মায়ের বাসায়। গতকাল সকালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত প্রথম জানাজায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক, সাবেক ও বর্তমান রাষ্ট্রদূত এবং প্রয়াতের সহকর্মীরা অংশ নেন। গতকাল বাদ আসর গুলশান আজাদ মসজিদে তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার হেলিকপ্টারে মিজারুল কায়েসের মরদেহ কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া নেওয়া হবে। সেখানে আরেকটি জানাজা শেষে মরদেহ আবার ঢাকায় আনা হবে। পরে বনানীতে তার মা-বাবার কবরের পাশে দাফন করা হবে।

২০১৪ সাল থেকে ব্রাজিলে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন মিজারুল কায়েস। এর আগে তিনি রাশিয়া, যুক্তরাজ্য ও মালদ্বীপে রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেন। বিসিএস ১৯৮২ ব্যাচের এই কর্মকর্তা ২০০৯ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত পররাষ্ট্র সচিবের দায়িত্ব পালন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here