মার্কিন রণতরী যাচ্ছে উ. কোরিয়ার উল্টো দিকে!

0
99

05d135490063b910ca35e099c19c5a94-58f6f4a11e1bcআন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর কোরিয়াকে হুমকি দিয়ে যে মার্কিন বিমানবাহী রণতরীকে কোরিয়া উপদ্বীপে মোতায়েন করার কথা জানিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেই ভিনসন স্ট্রাইক গ্রুপ এখন উত্তর কোরিয়ার দিকে না গিয়ে উল্টো পথে অস্ট্রেলিয়ার দিকে যাত্রা করেছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

এর আগে গত ৮ এপ্রিল মার্কিন নৌবাহিনী জানিয়েছিল, ‘হুমকির জবাব হিসেবে’ কার্ল ভিনসন স্ট্রাইক গ্রুপকে কোরিয়া উপদ্বীপে পাঠানো হয়েছে।

তখন এক বিবৃতিতে মার্কিন সামরিক বাহিনীর প্যাসিফিক কমান্ড জানিয়েছিল, ‘উত্তর কোরিয়ার ক্রমাগত দায়িত্বহীন পারমাণবিক পরীক্ষা চালানো ও ক্ষেপণাস্ত্রের সংখ্যা বাড়িয়ে চলার মাধ্যমে যে ব্যাপক ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, তা মোকাবিলার জন্যই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।’ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পূর্ণ যুদ্ধ প্রস্তুতি নিয়ে রণতরীটি কোরিয়ার দিকে যাচ্ছে।

গত সপ্তাহে ট্রাম্পও ওই রণতরী মোতায়েনের কথা উল্লেখ করে ‘যথাযথ জবাব’ দেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন।

কিন্তু প্রকৃতপক্ষে ওই রণতরীটি কোরিয়া উপদ্বীপে না এসে, ভারত মহাসাগরের সুনদা প্রণালি দিয়ে অস্ট্রেলিয়ার দিকে যাচ্ছে।

এখন যুক্তরাষ্ট্র বলছে, অস্ট্রেলিয়া থেকে প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর রণতরীটি অন্যদিকে যাবে।

মঙ্গলবার প্যাসিফিক কমান্ড জানিয়েছে, ‘নির্দেশ অনুযায়ী রণতরীটি এখন প্রশান্ত মহাসাগরের পশ্চিমাঞ্চলে যাচ্ছে।’

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির কোরিয়া প্রতিনিধি স্টেফেন ইভানস জানিয়েছেন, এটা এখনও পরিষ্কার নয়, কেন রণতরীটি কোরিয়া উপদ্বীপে পৌঁছায়নি। হতে পারে এটা উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনকে ভয় দেখানোর কৌশল, অথবা পরিকল্পনায় পরিবর্তন, অথবা যোগাযোগে সমন্বয়হীনতা।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া পরস্পর উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড এবং মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ভিনসন স্ট্রাইক গ্রুপকে কোরিয়া উপদ্বীপে পাঠানোর ঘোষণার পর সেখানে এখন কার্যত যুদ্ধাবস্থা জারি রয়েছে।

সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক ব্যবস্থা নেওয়ারও ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। সিরিয়া সরকারের ওপর তিনি এরই মধ্যে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছেন। আফগানিস্তানেও আইএস জঙ্গিদের ওপর অপারমাণবিক সবচেয়ে বড় বোমা বিস্ফোরণ এরই মধ্যে ঘটিয়েছেন তিনি। উত্তর কোরিয়াকে থামানো না গেলে তারা যুক্তরাষ্ট্রে পারমাণবিক অস্ত্র হামলা চালানোর সক্ষমতা অর্জন করে ফেলতে পারে বলে উদ্বিগ্ন ওয়াশিংটন।

জাতিসংঘে উত্তর কোরিয়ার উপ-রাষ্ট্রদূত কিম ইন-রিয়ং বলেছেন, ‘বিশ্বের সবচেয়ে মারাত্মক’ যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হতে যাচ্ছে কোরিয়া উপদ্বীপ। ‘যে কোনও সময় পারমাণবিক যুদ্ধ শুরু হতে পারে’ বলেও তিনি সতর্ক করেছেন।

এর আগে উত্তর কোরিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী হান সং-রিয়ল বিবিসি-কে বলেন, ‘আমরা সাপ্তাহিক, মাসিক ও বার্ষিকভিত্তিতে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাবো। যুক্তরাষ্ট্র যদি সামরিক শক্তি ব্যবহার করে তাহলে উত্তর কোরিয়া সর্বাত্মক যুদ্ধ করবে।’