মাইক্রোসফটের নতুন কম্পিউটারকে সবাই আইম্যাক বলছেন, কিন্তু কেন?

0
154

152650to_everyone_calling_microsoft_1মাইক্রোসফটের নতুন সারফেস স্টুডিও অল-ইন-ওয়ান পিসিকে সবাই অ্যাপলের আইম্যাকের সঙ্গে তুলনা করছেন।…..কিন্তু এই ধারণাটি ভুল।

আর হ্যাঁ, এটিও একটি ভিত্তির ওপর স্থাপিত একটি বড় ওওয়ান তীক্ষ্ণ স্ক্রিন। কিন্তু এর উপরিতলের স্টুডিওটি টাইপ, পয়েন্ট এবং এদিক-ওদিক ক্লিকের চেয়েও বেশি কিছু করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

আইম্যাক হলো সাধারণ ভোক্তাদের জন্য একটি অসাধারণ ডেস্কটপ। আর সারেফেস স্টুডিওর টার্গেট হলো সেসব ভোক্তা যারা কিছু সৃষ্টি করতে চান।
এর পুরো স্ক্রিনটি ভাঁজ করা যায়। যাতে আপনি এতে কাজ করার জন্য এর আরো নিকটস্থ হতে পারেন। মিউজিক কম্পোজ বা থ্রিডি মডেল যাই করেন না কেন।

এ ছাড়া এর রয়েছে একটি চতুর সাফেস ডায়াল, একটি অনন্য শারীরিক স্ক্রল হুইল। যাতে কাজের ওপর নিজের আরো বেশি নিয়ন্ত্রণ কায়েম করা যায়।

স্টুডিওটি কোনো কম্পিউটার নয়। এটি সম্পূর্ণ নতুন একটি কম্পিউটিং ক্যাটাগরি। একধরনের ডেস্কটপ-ট্যাবলেট হাইব্রিড যা ইতিমধ্যেই লোককে উত্তেজিত করেছে।

আর এ থেকে নতুন করে প্রমাণিত হলো যে মাইক্রোসফট শুধু সেকেলে এবং একঘেয়ে কোনো প্রযুক্তি উৎপাদক কম্পানি নয় যার কোনো উদ্ভাবনী ক্ষমতা নেই।

এর মধ্য দিয়ে ফের প্রমাণ করল তারাই প্রযুক্তি খাতের সবচেয়ে অভিনব উদ্ভাবনী ক্ষমতার অধিকারী কম্পানি।
সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!