ভোটের বছরে বড় প্রকল্পের ছড়াছড়ি

0
43

ঢাকা: ভোটের বছর সরকারের বড় প্রকল্পের ছড়াছড়ি দেখা যাচ্ছে। ডিসেম্বরেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। সে হিসেবে নির্বাচনের আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বা উন্নয়ন বাজেট হচ্ছে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দের শেষ সুযোগ। তাই আগামী এডিপিতে সরকারের প্রতিশ্রুত মেগা প্রকল্পে অর্থ সরবরাহ করে যতদূর সম্ভব প্রকল্পগুলো দৃশ্যমান করার চেষ্টা থাকছে।

এজন্য স্বপ্নের পদ্মা সেতু, পদ্মা রেল সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, মাতারবাড়ি, মেট্রো রেলসহ বড় বড় প্রকল্পগুলোয় বড় অঙ্কের বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

কমিশন সূত্র জানায়, এরই মধ্যে মেগা প্রকল্পে বরাদ্দসহ আগামী অর্থবছরের মোট এডিপির খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে; যা জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) অনুমোদনের জন্য বৃহস্পতিবার (১০ মে) এনইসি সভায় তোলা হচ্ছে। নির্বাচনি বছরের এ এডিপির আকার দাঁড়াচ্ছে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা। নতুন এডিপিতে মোট প্রকল্প সংখ্যা হবে ১ হাজার ৪৫১টি। সূত্র জানায়, প্রায় দেড় হাজার প্রকল্পের মধ্যে সরকারের বেশ কয়েকটি মেগা প্রকল্প রয়েছে। সড়ক, রেল ও বিদ্যুৎ খাতের এসব প্রকল্পের আটটিতেই আগামী অর্থবছরে বরাদ্দ থাকছে ৩০ হাজার কোটি টাকার বেশি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, নির্বাচনি বছরে কিছু বড় প্রকল্পে বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়ে থাকে। এটা ঠিক আছে, কিন্তু বরাদ্দ যদি শেষ না হয়, বা অতিরিক্ত বরাদ্দ দেওয়া হয় তখন কিছু ক্ষেত্রে অহেতুক ব্যয়ের প্রবণতা দেখা দেয়। এ সময় সাধারণত বরাদ্দ বেশি দেওয়া হয় লোকজনকে দেখানোর জন্য যে অনেক কাজ হচ্ছে। প্রকল্পে প্রচুর টাকা খরচ হচ্ছে। এটা অনেকটাই নির্বাচনে কাজে লাগে, প্রচারণায় সুবিধা পাওয়া যায়। সবাইকে বলা যায়, সরকার অনেক কাজ করছে, অনেক বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে, উন্নয়ন হচ্ছে।

রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র : অর্থের দিক থেকে এবার সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছে দেশের প্রথম রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প।

পদ্মা সেতু : দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ সহজ করতে স্বপ্নের ‘পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পে আগামী এডিপিতে ৪ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকা রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে।

পদ্মায় রেল : সড়কের পর দক্ষিণাঞ্চলকে একই সময়ে রেল নেটওয়ার্কেও আনতে চায় সরকার। এজন্য নির্মিতব্য পদ্মা সেতুর পাশাপাশি রেললাইন স্থাপনে জন্য পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পে বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ৫ হাজার ৩৩০ কোটি টাকা। ৩৪ হাজার ৯৮৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকার এ প্রকল্পে চলতি অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল ৬ হাজার ৮১১ কোটি টাকা। ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রকল্পটিতে মোট ব্যয় হয়েছে ১২৫ কোটি টাকা। সম্প্রতি চীনের সঙ্গে ঋণ চুক্তি হওয়ায় এর কাজে বেশ গতি আসবে বলেই মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

মেট্রো রেল : দেশের প্রথম মেট্রো রেলের কাজ চলছে বেশ জোরোশোরেই। রাজধানীর যানজট নিরসনে নেওয়া ‘ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলেপমেন্ট প্রজেক্ট এর কাজ ২০১৬ সালের জুনে উদ্বোধন করা হয়। এতে আগামী এডিপিতে বরাদ্দ রাখা হচ্ছে ৩ হাজার ৯০২ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

মাতারবাড়ি বিদ্যুৎকেন্দ্র : ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে নেয়া মাতারবাড়ি ২লাখ ৬০০ মেগাওয়াট আল্ট্রা সুপার ক্রিটিক্যাল কোল ফায়ার্ড পাওয়ার প্রজেক্ট আগামী এডিপিতে বরাদ্দ থাকছে ২ হাজার ১৭১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

কর্ণফুলী টানেল : বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের দুই অংশের যোগাযোগ সুগম করতে দেশের প্রথম টানেল নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এজন্য গৃহীত ‘কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বহুলেন সড়ক টানেল নির্মাণ প্রকল্পে আগামী অর্থবছরের এডিপিতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১ হাজার ৯০৫ কোটি টাকা।

পায়রা বন্দর : পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দরের কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো/সুবিধাদির উন্নয়ন (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৫০০ কোটি টাকা।