ভারতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কাজে বাংলাদেশের মাটি ব্যবহার করতে দেয়া হবে না

0
21

ঢাকা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ভারতের সঙ্গে সর্বোচ্চ সুসম্পর্ক বিরাজমান। বাংলাদেশের এক ইঞ্চি মাটিও ব্যবহার করে ভারতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কাজ বা বিচ্ছিন্নতাবাদী কাজ চলতে দেয়া হবে না।

রোববার দুপুরে সচিবালয়ে ভারত-বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে চমৎকার বোঝাপড়া আছে। আমাদের যখন যে সহযোগিতা প্রয়োজন, ভারত দিচ্ছে।

মন্ত্রী জানান, ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং আশ্বাস দিয়েছেন- রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে তারা পাশে থাকবেন। এ ছাড়া ভিসা সহজীকরণ নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বৈঠক থেকে বেরিয়ে রাজনাথ সিং সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে খুবই সৌহাদ্যপূর্ণ পরিবেশে আলোচনা হয়েছে। আমরা সীমান্ত সমস্যা, রোহিঙ্গা ইস্যু ছাড়াও আঞ্চলিক নিরাপত্তা জোরদারের বিষয়ে আলোচনা করেছি। তবে এখনই সব বলতে চাচ্ছি না।

আজকের বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে কোনো সমস্যা আছে বলে আমি মনে করি না। দুই দেশের আন্তরিক চেষ্টায় এখন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করছে।

বেলা ১১টায় সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ ও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে বৈঠক শুরু হয়। বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বাংলাদেশের ১৫ সদস্যের ও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ৯ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। দুপুর পৌনে ১টার দিকে বৈঠকটি শেষ হয়।

বৈঠকে দুই দেশের ভিসা প্রক্রিয়া সহজ করতে দুই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক শেষে সংশোধিত ‘ট্র্যাভেল অ্যাগ্রিমেন্ট-২০১৮’ শীর্ষক চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

এর আগে সকাল ১০টা ২২ মিনিটে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সচিবালয়ে উপস্থিত হলে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। এ সময় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রাঙ্গণে অস্থায়ী মঞ্চে দাঁড়িয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) একটি দলের সালামগ্রহণ করেন রাজনাথ সিং।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্ধ্যায় তিন দিনের সফরে ঢাকায় আসেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং।

পর দিন শনিবার সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন রাজনাথ সিং। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বেলা ১১টার পর যমুনা ফিউচার পার্কে ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র উদ্বোধন করেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

ভিসা কেন্দ্র উদ্বোধনের পর দুপুরে রাজশাহী হয়ে সারদার পুলিশ একাডেমিতে যান রাজনাথ। সেখানে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী ভবন উদ্বোধন করেন দুই দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

সন্ধ্যায় ঢাকায় ফিরে তার সম্মানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের দেয়া নৈশভোজে যোগ দেন রাজনাথ সিং।

পূর্ব ঘোষিত বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণে শেষে আজ বিকালেই দিল্লির উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে যাবেন তিনি।