ভারতের প্রধানমন্ত্রী হতে ‘পুরোপুরি প্রস্তুত’: রাহুল

0
71

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: ২০১৯ সালের নির্বাচনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হওয়ার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন কংগ্রেসের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া, বার্কলেতে ‘ইন্ডিয়া অ্যাট ৭০’ সমাবেশে বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।

নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী পদে পুনর্নির্বাচিত হওয়ার জন্য এরই মধ্যে প্রস্তুতি শুরু করেছেন। বার্কলেতে রাহুলের কাছে জানতে চাওয়া হয় কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে তিনি কি মোদির সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান?

জবাবে রাহুল বলেন, ‘আমি পুরোপুরি প্রস্তুত। তবে আমি একটি রাজনৈতিক দলের সদস্য, দলের সিদ্ধান্তের ওপর সবকিছু নির্ভর করছে। কংগ্রেসের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।’

তবে অনুষ্ঠানে ক্ষমতাসীন বিজেপি এবং কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সরাসরি আক্রমণ করেননি এ বিরোধীদলীয় নেতা।

তিনি বলেন, আমি বিরোধী নেতা। কিন্তু নরেন্দ্র মোদি আমারও প্রধানমন্ত্রী। মোদির সব থেকে বড় দক্ষতা হল উনি ভালো কথা বলতে পারেন। আমার চেয়ে ঢের ভালো বক্তা উনি। লাখ লাখ মানুষের ভিড়ের মধ্যেও তিন থেকে চারটি আলাদা আলাদা সংগঠনকে বার্তা দেয়ার ক্ষমতা রাখেন। মানুষের ওপর প্রভাব ফেলতে তা যথেষ্ট কার্যকর।

মোদিকে খোঁচা দিয়ে রাহুল বলেন, তার একটিই সমস্যা। তিনি সহকর্মীদের সঙ্গে খুব একটা কথা বলেন না। সংসদ সদস্যরা তো বটেই, বিজেপির অনেকেই আমাকে এ কথা বলেছেন।

গত নির্বাচনে কংগ্রেসের শোচনীয় পরাজয়ের কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে দলের ভেতরে অহংকারী লোকদের ভিড় বেড়েছে। পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে, আমরা একে অপরের সঙ্গে কথা বলা পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছি। তাদের জন্যই ২০১২ সাল থেকে লাগাতার ব্যর্থতা আসছে।

দলে পরিবারতন্ত্র নিয়ে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর ছেলে রাহুল বলেন, বেশিরভাগ দেশেই এমন নজির রয়েছে। আমাদের দেশেই অখিলেশ যাদব, স্ট্যালিন, ধুমল- এমনকি অভিষেক বচ্চন, অনিল আম্বানিও পারিবারিক পেশাকে বেছে নিয়েছেন।

দীর্ঘদিন ধরে ভারতে এমনটি চলছে জানিয়ে পরিবারতন্ত্র নিয়ে তাকে কেন আক্রমণ করা হচ্ছে, কেন তা নিয়ে প্রশ্ন করেন তিনি। তার মতে, যোগ্যতা ও সংবেদনশীলতাকে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত।‌

বার্কলেতে বিজেপির সমালোচনা করে ভারতজুড়ে ঘৃণা, ক্রোধ, হিংসা ও রাজনৈতিক মেরুকরণের জন্য তাদের দায়ী করেন রাহুল।

গরুর গোশত খাওয়ায় গণপিটুনির নৃশংসতা মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে জানিয়ে এর জন্যও বিজেপির সমালোচনা করেন এ কংগ্রেস নেতা।

উল্লেখ্য, দুই সপ্তাহের সফরে সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকো পৌঁছেছেন রাহুল গান্ধী।

সেখান থেকে তিনি লসঅ্যাঞ্জেলেসে যাবেন। পরে ওয়াশিংটন ডিসি ও প্রিন্সটন ইউনিভার্টিতে যাবেন। নিউইয়র্কের বিখ্যাত ম্যারিয়ট হোটেলে অনাবাসী ভারতীয়দের উদ্দেশে বক্তৃতার মধ্য দিয়ে তার সফর শেষ হবে।