বিশ্ব ভারতীতে বৈঠকে বসবেন হাসিনা-মোদি

0
30

ঢাকা: দুইদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীশেখ হাসিনা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

মূলত পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নিতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

এ অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ও অংশ নেবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ ছাড়াও শান্তিনিকেতনে নবনির্মিত বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হবেন।

সফরকালে পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলে কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মানসূচক ডক্টরেট অব লিটারেচার(ডিলিট) ডিগ্রী দেওয়া হবে।

বুধবার বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী জানান, শুক্রবার সকাল ৯টায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সফর সঙ্গীদের নিয়ে হযরত শাহজালাল বিমান বন্দর থেকে কোলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। এরপর কোলকাতায় নেতাজী সুবাস চন্দ্র বসু আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দর পৌঁছে সেখান থেকে হেলিকপ্টারে বীরভূম জেলার বোলপুর শান্তিনিকেতনে যাবেন।

শান্তিনিকেতনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাবেন বিশ্বভারতী বিশ্বববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সবুজ কলি সেন। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্র ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিন্দন জানাবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

অভ্যর্থনা অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব ভারতীর সমাবর্তনে যোগ দেবেন। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রওী মোদি এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীও মমতা অংশ নেবেন। সমাবর্তন অনুষ্ঠান শেষে দুই প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব ভারতীতে নবনির্মিত বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন করবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, এই বাংলাদেশ ভবনে নির্মিত হয়েছে আধুনিক থিয়েটার, প্রদর্শনী কক্ষ এবং বিশাল পাঠাগার। এই পাঠাগারে রয়েছে সাহিত্য, সংস্কৃতি, ইতিহাস, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাস এবং বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সংক্রান্ত বিভিন্ন গ্রন্থ। ভবনের প্রবেশদ্বারের দুই প্রান্তে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মুর‌্যাল স্থাপন করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সু-সম্পর্ক আরও জোরদার করা বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে।

দ্বিপক্ষীয় বৈঠতে তিস্তার পানিবন্টন চুক্তি নিয়ে কোন আলাপ হবে কিনা জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, তিস্তার চুক্তি নিয়ে নানা পর্যায়ে আলোচনায় অগ্রগতি হচ্ছে। যথাসময়ে এ ব্যাপারে জানতে পারবেন। এ ধরনের চুক্তি কোন নির্দিষ্ট সময়সীমা দিয়ে হয় না।

দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কলকাতায় যাবেন। এখানে তিনি কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতি বিজড়িত জোড়াসাকো ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শন করবেন। সন্ধ্যায় হোটেল তাজ বেঙ্গলে কলকাতা চেম্বার নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসানসোলে যাবেন। সেখানে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ সমাবর্তনে যোগ দেবেন এবং সম্মানসূচক ডিলিট ডিগ্রী গ্রহণ করবেন।

এ অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় উপস্থিত থাকবেন। আসানসোল থেকে কলকাতায় ফিরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু যাদুঘর পরিদর্শন করবেন। শনিবার রাতেই ঢাকা ফিরে আসবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।