বিছানায় মোবাইল নিয়ে ঘুমান? জেনে নিন পরিণাম

0
203

012006kaler-kantho_picরাতে বিছানায় শুয়ে মোবাইল ঘাঁটাঘাঁটির অভ্যেস যেমন অনেকের থাকে, তেমনই অনেকে আবার নিজের মোবাইল ফোনটিকে বিছানায় রেখেই ঘুমিয়ে পড়েন। কিন্তু এর পরিণামে আপনার কতবড় সর্বনাশ হতে পারে, আপনার কোনও ধারণা রয়েছে? নিউজিল্যান্ডের এরিন নেলসনের করা একটি ফেসবুক পোস্ট এই সম্পর্কে একটা ধারণা দিতে পারে।

এরিন তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া একটি মারাত্মক ঘটনার বিবরণ দিয়েছিলেন তার ফেসবুক পেজে। ১৬ নভেম্বর ২০১৫-র এই পোস্টে তিনি জানিয়েছিলেন, বিছানায় নিজের আইফোন ফাইভ ফোনটিকে রেখে রাত্রে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। পরের দিন সকালে যখন ঘুম ভাঙে তার, তখন দেখতে পান, মোবাইলের কভারটি ফেটে গিয়েছে, এবং ফোনের ভিতরকার জিনিসপত্র বেরিয়ে এসে তার কোমরের নীচে লেগে রয়েছে। শুধু তা-ই নয়, কোমরের যে অংশে মোবাইলের ভিতরের উপাদান লেগে গিয়েছিল, সেই অংশে রীতিমতো গুরুতর কেমিক্যাল বার্ন হয়ে গিয়েছে। চামড়া লাল হয়ে গিয়ে রীতিমতো জ্বালা যন্ত্রণায় কষ্ট পেতে হয়েছে এরিনকে।

এরিন দাবি করেছেন, তিনি তার আইফোনের জন্য যে কভারটি কিনেছিলেন অস্ট্রেলিয়ান ক্লোদিং স্টোর ফরএভার নিউ এর দোকান থেকে, সেটির জন্যই এই পরিণতি হয়েছে তার। তাঁর অনুমান, ২০ ডলার দিয়ে যে মোবাইল কভারটি তিনি কেনেন, তাতেই এমন কিছু রাসাযনিক দ্রব্য ছিল, যার সংস্পর্শে মোবাইলটি আসার পরে কোনও বিষাক্ত বিক্রিয়া ঘটে যায় মধ্যে।

এই পোস্টের পরিপ্রেক্ষিতে ‘ফরএভার নিউ’ সংস্থার তরফে এরিনকে মেইল পাঠিয়ে এই বিষয়ে আরও তথ্য চাওয়া হয়। এরই মধ্যে এমা হিউজেস ডসন নামের এক তরুণী ফেসবুকে পোস্ট করে জানান, তিনিও এরিনের মতোই মোবাইল বিছানায় নিয়ে শুয়েছিলেন। পরের দিন সকালে আবিষ্কার করেন, তারও পায়ের একটি অংশ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় পুড়ে গিয়েছে। তিনিও নাকি ‘ফরএভার নিউ’ কোম্পানির তৈরি মোবাইল কভার ব্যবহার করছিলেন।

‘ফরএভার নিউ’ এর পরই তাদের তৈরি যাবতীয় মোবাইল কভার বাজার থেকে তুলে নেয়। কিন্তু মোবাইল বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, কভার যে কোম্পানিরই হোক না কেন, বিছানায় মোবাইল নিয়ে ঘুমনো সব সময়েই বিপজ্জনক। লন্ডনের ‘দা স্লিপ স্কুল’ এর বিশেষজ্ঞ ডাক্তার গাই মিডোজ জানিয়েছেন, রাত্রিবেলা বিছানায় স্মার্ট ফোন নিয়ে শোওয়ার অভ্যেস নিদ্রাহীনতার কারণ হিসেবে কাজ করে। এ ছাড়াও মোবাইল থেকে রাত্রে এমন কিছু গ্যাস নির্গত হয়, যা স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here