বিএনপি নেতা গয়েশ্বর কারাগারে, অর্ধশত নেতাকর্মী রিমান্ডে

0
52

ঢাকা: হাইকোর্ট এলাকায় পুলিশের প্রিজনভ্যানে হামলা করে নেতাকর্মীদের ছিনিয়ে নেয়ার মামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

একই সঙ্গে ওই ঘটনায় দায়ের করা পৃথক তিন মামলায় বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রমনা থানায় দায়ের করা বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের জামিন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। একই মামলায় ৩৬ জন আসামির বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে।

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিতের তিন দিনের রিমান্ড ও অপর আসামিদের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। এছাড়া চকবাজার থানার বিএনপি নেতা শফিক উদ্দিন আহম্মেদ জুয়েলের রিমান্ড ও জামিন নাকচ করে একদিনের মধ্যে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর হাকিম মাহমুদুল হাসান এ আদেশ দেন।

রিমান্ডে যাওয়া উল্লেখযোগ্য অপর আসামিরা হলেন- মহিলা দলের সাবেক সভাপতি পেয়ারা মোস্তফা, মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেহানা সুলতানা আরজু, কেন্দ্রীয় মহিলা দলের নেত্রী শারমিন আক্তার মুন্নি, চকুয়া থানা বিএনপির সদস্য মো. মোজাম্মেল হক লিটন, রামপুরা থানার কৃষক দলের সভাপতি আসাদুজ্জামান আরিশ, পল্টন থানা বিএনপি নেতা গাজী হাবিব হাসান, পল্লবী থানা বিএনপি নেতা মো. সাইদুর রহমান, চকবাজার থানার বিএনপির নেতা মো. আব্দুল্লাহ নূর প্রমুখ।

এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম আসামি গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। আর অপর আসামিদের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত ওই আদেশ দেন।

আসামিপক্ষে সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহম্মেদ তালুকদার, মহসিন মিয়া, ইকবাল হোসেন প্রমুখ রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন শুনানি করেন। আর গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের জামিনের আবেদন করেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পক্ষে জামিন শুনানিতে তারা বলেন, তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ নেই। প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অপর আসামিদের রিমান্ড শুনানিতে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা বলেন, খালেদা জিয়া বকশীবাজারের আদালতে হাজিরা দিতে যান। তিনি তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তাকে দেখার জন্য লোকজন রাস্তায় দাঁড়াতেই পারে। পুলিশ তাদের খোঁচা দিচ্ছে আর এরপর তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিচ্ছে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ের তারিখ ধার্য আছে ৮ ফেব্রুয়ারি। রায়কে কেন্দ্র করে প্রতিটি থানায় গণগ্রেফতার শুরু হয়েছে। বিএনপি করাটাই তাদের অপরাধ।

এদিকে রমনা থানার আরেক মামলায় বিএনপির শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক আনিছুর রহমান খোকনের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। একই ঘটনায় রাজধানীর শাহবাগ থানায় দায়ের করা দুই মামলায় ১৮ জনের ৭ দিন করে রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

প্রসঙ্গত, রাজধানীর হাইকোর্ট এলাকায় পুলিশের প্রিজনভ্যানে হামলা ও ছাত্রদলের দুই কর্মীসহ তিন নেতাকে ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় নির্দেশদাতা হিসেবে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের বিরুদ্ধে রাজধানীর রমনা ও শাহবাগ থানায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়।

মঙ্গলবার মধ্যরাতে শাহবাগ থানার এসআই রহিদুল ইসলাম ও এসআই চম্পক বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় পৃথক দুটি এবং রমনা থানার এসআই মহিবুল্লাহ বাদী হয়ে রমনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর গুলশানে পুলিশ প্লাজার সামনে থেকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে গ্রেফতার করে পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here