বিএনপি ক্ষমতায় এলে ‘লুটে’ খাবে

0
12

ঢাকা: বিএনপি ক্ষমতায় এসে আগের মতোই লুটপাট করবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, তারা তখনও দেশের জন্য কিছু করেনি, করতে জানে না।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘তারা লুটে নিতে পারে, লুটে খেতে পারে; ক্ষমতায় যখন ছিল, তখন তাই করেছিল।’

‘রাজনীতি ব্যক্তিস্বার্থে হলে, সে রাজনীতি দেশকে কিছু দিতে পারে না। নিজেরা নিতে পারে।’

স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে শুক্রবার সংগঠনটির নেতারা গণভবনে শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান। এ সময় তিনি এসব কথা বলেন।

২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে দেশের অবস্থা বর্ণনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দুর্নীতি, মানি-লন্ডারিং- এটা তো বাংলাদেশে বলা লাগে না, সুদূর আমেরিকাতেও প্রমাণিত।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের বিষয়টিও উদাহরণ হিসেবে টানেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘যারা এতিমের টাকার লোভ সামলাতে পারে না, তারা এই দেশে ক্ষমতায় এসে জনগণকে কী দিতে পারে? কিছুই দিতে পারবে না। তারা লুটে নিতে পারে, লুটে খেতে পারে; ক্ষমতায় যখন ছিল, তখন তাই করেছিল।’

‘আবার যদি কোনোদিন ক্ষমতায় আসতে পারে… ওই লুটেই খাবে, দেশের মানুষের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন হবে না।’

খালেদা জিয়াকে ‘অন্যায়ভাবে’ কারাগারে আটকে রাখার বিষয়ে নেতাদের অভিযোগেরও জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আমরা তো পলিটিক্যালি অ্যারেস্ট করি নাই। তাহলে তো ২০১৫, ২০১৪ বা ২০১৩ সালে করতাম।’

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর মুক্তির দাবিতে থাকা বিএনপিকে আদালতে লড়াই করারও পরামর্শ দেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘সে (খালেদা জিয়া) এতিমের টাকা মেরে খেয়ে গ্রেফতার হয়ে জেলে গেছে। কোর্টের ব্যাপার, কোর্টেই সমাধান হবে।’

‘ইতিহাস বিএনপিকে ক্ষমা করেনি’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের শাসনামলে দেশের অগ্রগতির কথাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘রাজনীতি যদি হয় জনগণের স্বার্থে, জনগণের কল্যাণে, জনগণের মঙ্গলে, তাহলে দেশকে কিছু দেয়া যায়। তা আমরা প্রমাণ করেছি।’

‘বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা বাজেট সাত-আটগুণে বৃদ্ধি করেছি। উন্নয়নের ছোঁয়া গ্রাম বাংলা পর্যন্ত পৌঁছে গেছে।’

উন্নয়নের কথা তুলে ধরেই ভোট চাইতে সংগঠনের নেতা-কর্মীদের পরামর্শ দেন আওয়ামী লীগ প্রধান। বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারে এসে জনগণের জন্য যে যে কাজ করেছে, উন্নয়নের জন্য যে যে কাজ করেছে, সেগুলো জনগণের কাছে বলতে হবে। সেই সঙ্গে সঙ্গে আগামীতে যে নির্বাচন সে নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট চাইতে হবে।’

‘কারণ, নৌকা তাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছে, নৌকা তাদের অর্থনৈতিক মুক্তি দিয়েছে, নৌকা উন্নতি দেবে, নৌকা সমৃদ্ধি দেবে।’

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর আবার মানুষের মনে আস্থা বিশ্বাস ফিরে এসেছে বলেও মনে করেন দলটির প্রধান।

নিজের রাজনৈতিক আদর্শের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার লক্ষ্য একটাই, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য গড়া… নিজেদের না। আমরা নিজেদের ভাগ্য গড়তে রাজনীতি করি না। আমরা এটুকুই চাই, বাংলাদেশের ভাগ্যের পরিবর্তন হোক।’