বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের ক্রিকেটের মান প্রায় সমান

0
82

স্পোর্টস ডেস্ক: ২০০৭ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক পাকিস্তানের বাঁ-হাতিপেসার সোহেল তানভিরের। তাকে টি ২০ বিশেষজ্ঞ বোলার বলা হয়। বিপিএলে এবার সিলেট সিক্সার্সের হয়ে খেলছেন। ৩২ বছর বয়সী তানভির যুগান্তরের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে জানালেন, এ মুহূর্তে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের ক্রিকেটের মান প্রায় সমান।

প্রশ্ন : আপনাকে টি ২০ বিশেষজ্ঞ মনে করা হয়। টেস্ট ক্রিকেটে সফল হতে পারেননি। টেস্ট ও সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের ক্রিকেটের মধ্যে পার্থক্য কোথায়?

তানভির : ক্রিকেটের নিয়ম তো একই। একজন ভালো খেলোয়াড় সব ফরম্যাটেই ভালো খেলে। টেস্ট আলাদা। কিন্তু ওয়ানডে ও টি ২০ ক্রিকেট প্রায় একই। এই দুই ফরম্যাটের চেয়ে টেস্ট ক্রিকেট খেলার জন্য অনেক বেশি ধৈর্য লাগে।

প্রশ্ন : আপনি মাত্র দুটি টেস্ট খেলেছেন। তবে কী আপনি ভালো বোলার নন?

তানভির : হা হা হা…। হয়তো আমি টেস্ট খেলার উপযোগী ছিলাম না।

এজন্যই বেশি খেলতে পারিনি।

প্রশ্ন : আপনি ২০১২ সাল থেকে বিপিএলে খেলছেন। আপনার চোখে

এই টুর্নামেন্ট কেমন?

তানভির : এখানে অনেক প্রতিযোগিতা হয়। এই টুর্নামেন্ট থেকে স্থানীয় ক্রিকেটারদের অনেক কিছু শেখার রয়েছে। প্রথম কয়েকটি আসরে স্থানীয় খেলোয়াড়রা ভালো করতে পারেনি। সম্প্রতি স্থানীয় ক্রিকেটাররা ব্যাটে-বলে অনেক ভালো করছে। এটা বাংলাদেশের জন্য বড় পাওয়া।

প্রশ্ন : আপনার বোলিং অ্যাকশন অন্যদের চেয়ে আলাদা। ভিন্ন অ্যাকশন থেকে আপনি কি সুবিধা পেয়ে থাকেন?

তানভির : হ্যাঁ, কিছুটা সুবিধা পাই। কিন্তু এখন সব কিছু দ্রুত শিখে ফেলা যায়। শুধু বোলিং অ্যাকশন দিয়ে সাফল্য পাওয়া যায় না। সাফল্য পেতে অবশ্যই স্কিলের দরকার। যতদিন গড়িয়েছে আরও বেশি ভ্যারিয়েশন আনার চেষ্টা করেছি।

প্রশ্ন : আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপনার স্মরণীয় ঘটনা?

তানভির : ২০০৯ সালে টি ২০ বিশ্বকাপ জয় অবশ্যই সবচেয়ে স্মরণীয় ঘটনা। বিশ্বকাপ জয়ের সঙ্গে অন্য কোনো কিছুর তুলনা হয় না। ২০০৭ সালে প্রথম টি ২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতের কাছে পাঁচ রানে হারটা এখনও কষ্ট দেয়।

প্রশ্ন : বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের ক্রিকেটের মধ্যে এখন কারা এগিয়ে?

তানভির : দু’দেশেই ক্রিকেটের প্রতি মানুষের ভালোবাসা রয়েছে। সত্যি বলতে কি, এখন দু’দলের মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্য নেই। বাংলাদেশ অনেক উন্নতি করেছে। দেশের মাটিতে বাংলাদেশ কঠিন প্রতিপক্ষ। যেকোনো দল এখানে খেলতে এলে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে। ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড সেই পরীক্ষা দিয়েছে। বিপিএলের মতো টুর্নামেন্টে তরুণ ক্রিকেটাররা তাদের স্কিল দেখাচ্ছে। নতুন প্রতিভা উঠে আসছে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

প্রশ্ন : আপনার দলে নাসির-সাব্বির রয়েছেন। তাদের কেমন দেখছেন?

তানভির : তারা অনেক প্রতিভাবান। অবশ্যই তারা ভালো খেলোয়াড়। তাদের প্রতিভা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। তবে স্কিল প্রয়োগ করাই সবচেয়ে বড় কাজ। সেটা ঠিকমতো প্রয়োগ করতে না পারলে প্রতিভা থাকলেও খুব বেশি কাজে আসে না।

প্রশ্ন : সিপিএলে আপনি তিন রানে পাঁচ উইকেট, আইপিএলে ১৪ রানে ছয় উইকেট নিয়েছেন। এমন বোলিংয়ের সঙ্গে অন্য বোলিংয়ের পার্থক্য কোথায়?

তানভির : এরকম সাফল্য প্রতিদিন আসবে না। এটা আমার সারা জীবনের

অর্জন। এমন পারফরম্যান্সের কথা মনে করলে অনুপ্রাণিত হই। ভালো অনুভব করি। আইপিএলে এক ম্যাচে ছয় উইকেট নিয়েছি। সিপিএলে তিন রানে পাঁচ উইকেট। এটা বিশ্ব রেকর্ড। প্রতিদিনই আমার সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু প্রতি ম্যাচেই তো আর এমনটা হবে না। প্রতিদিনই তো আর রোববার (ছুটির দিন) হয় না (হাসি)।

প্রশ্ন : বাংলাদেশকে কেমন লাগে?

তানভির : বাংলাদেশ আমার অন্যতম পছন্দের দেশ। পাকিস্তান ও বাংলাদেশের মধ্যে খুব বেশি পার্থক্য দেখি না। পাকিস্তানের পর বাংলাদেশকে সবচেয়ে ভালো লাগে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশকে ভালো লাগার পেছনে অর্থও তো একটি কারণ?

তানভির : (মুচকি হেসে) এখানে বিপিএলের মতো টুর্নামেন্ট হচ্ছে।