বাংলাদেশের আহ্বানে সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলার বিষয়ে বৈঠক শুরু

0
23

ঢাকা: সিরিয়ার দৌমাতে রাসায়নিক হামলা হয়েছে কিনা তা বের করতে বৈঠকে বসেছে ‘অর্গানাইজেশন ফর দ্য প্রোহিবিশন অফ কেমিক্যাল উয়েপন্স (ওপিসিডব্লিউ)’।

সংস্থাটির বর্তমান সভাপতি বাংলাদেশের আহ্বানে সোমবার সভা শুরু হয়েছে। কূটনৈতিক সূত্রগুলোর বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি এ খবর দিয়েছে।

রুশ সমর্থিত সিরিয়ার আসাদ বাহিনী বিদ্রোহী অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে ব্যাপক বোমাবর্ষণের পাশাপাশি রাসায়নিক হামলাও চালিয়েছে- এমন অভিযোগ পুরনো।

মাঠ পর্যায়ে কাজ করা সিরিয়ান-আমেরিকান চিকিৎসকদের সংগঠন জানিয়েছে, তাদের চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে যাওয়া রোগীদের মধ্যে রাসায়নিক হামলার চিহ্ন স্পষ্ট।

আগে সারিন গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগ উঠলেও নিকট অতীতের হামলাগুলোতে ক্লোরিন ব্যবহার করার অভিযোগ করা হয়েছে সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে।

সর্বশেষ রাসায়নিক হামলায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ৮৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। ওই হামলার বিষয়ে জাতিসংঘের আলোচনায় ভেটো প্রয়োগ করেছে রাশিয়া। দেশটির বক্তব্য, দৌমাতে কোনো রাসায়নিক হামলার প্রমাণ পায়নি তাদের ত্রাণকর্মী ও পাঠানো বিশেষজ্ঞ দল।

এদিকে রাসায়নিক হামলাকে কারণ হিসেবে দেখিয়ে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স সিরিয়ার রাসায়নিক স্থাপনাগুলোতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে গত শনিবার। সোমবার বৈঠক শুরুর আগে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও রাশিয়ার কূটনীতিকদের হেগে অবস্থিত ওপিসিডব্লিউয়ের প্রধান কার্যালয়ে উপস্থিত হতে দেখা গেছে।

সংস্থাটির ১৯২ সদস্যের মধ্যে সোমবারের বৈঠক হয় কার্যনির্বাহী পরিষদের ৪১ সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের নিয়ে। গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে লিখেছে, সেখানে ওপিসিডব্লিউয়ের পক্ষ থেকে সিরিয়া-রাশিয়ার অসহযোগিতার কথা বলা হয়েছে।

দৌমার যে স্থানগুলোতে রাসানিক হামলা হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গিয়েছিল, সে স্থানগুলোতে তাদের পর্যবেক্ষদের যেতে বাধা দিয়েছে সিরিয়া ও রাশিয়ার নিরাপত্তারক্ষীরা।

সংস্থাটিতে থাকা সুইডেনের স্থায়ী প্রতিনিধি পিটার লিক বলেছেন, ওপিসিডব্লিউয়ের পর্যবেক্ষকদের বাধা দিয়ে নিরাপত্তারক্ষীরা বলেছে, তাদের নিরাপত্তার কোনো নিশ্চয়তা দেয়া সম্ভব নয়।

জাতিসংঘের আনুষ্ঠানিক অনুমোদন ছাড়া ওপিসিডব্লিউয়ের দলটিকে সংশ্লিষ্ট স্থানগুলোতে যেতে দেয়া হবে না মর্মে রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভের করা মন্তব্যের বাস্তবায়ন দেখা যাচ্ছে বাধা দেয়ার ওই ঘটনায়।

গার্ডিয়ান লিখেছে, ওপিসিডব্লিউ দলটি দামেস্কতে পৌঁছার আগেই রুশ কর্মকর্তারা ওই স্থানগুলোতে পৌঁছেছিলেন। ফলে তারা রাসায়নিক হামলার প্রমাণ বিকৃত করে থাকতে পারে- এমন সন্দেহের জন্ম হয়েছে।

এদিকে রাশিয়া এক বিবৃতি বলেছে, ওপিসিডব্লিউয়ের তদন্তে তারা কোনো হস্তক্ষেপ করবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here