নিউ ইয়র্কের সেই সাদী এখন কারাগারে

0
114

প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে শাস্তি পেলেও নির্দিষ্ট দিনে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে হাজিরা এড়িয়ে পালিয়ে যাওয়ায় তাকে এবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের ওরল্যান্ডো ডিভিশনে মিডল ডিস্ট্রিক্ট ফেডারেল কোর্টের গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় গত ১৭ মে ওয়াশিংটন ডিসি থেকে সাদীকে ধরে এফবিআই।

এরপর ৯ জুন তাকে ফ্লোরিডার আদালতে হাজির করা হলে বিচারক গ্রেগরি এ প্রেসনেল তাকে কারাগারে রাখার নির্দেশ দেন। ২৭ জুন তার আদালতে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ফ্লোরিডার আদালতের নথিপত্রে দেখা যায়, সাদী যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানকে দেউলিয়া এবং ক্ষতিগ্রস্ত করতে নানা ধরনের চক্রান্ত ও চুরির আশ্রয় নিয়েছেন।

ভুয়া চেক, ব্যাংকের সঙ্গে প্রতারণা, বিভিন্ন ব্যক্তি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে প্রতারণার দায়ে আদালত ২০১৪ সালে সাদীকে শাস্তি দিয়েছিল।

তবে শর্তাধীনে সাদী বাইরে ছিলেন। শর্তের মধ্যে অন্যতম ছিল প্রতি মাসের ৫ তারিখের মধ্যে নিকটস্থ প্রবেশন অফিসারের সঙ্গে দেখা করে নিশ্চিত করতে হবে যে তিনি আর কোনো অপকর্মে লিপ্ত হননি অথবা ওরল্যান্ডে সিটি ত্যাগ করেননি।

কিন্তু এই শর্ত তিনি শুরু থেকেই লঙ্ঘন করে চলছিলেন। তিনি নিউ ইয়র্কে পালিয়ে গেছেন জানার পর নিউ ইয়র্ক সিটির ফেডারেল কোর্টের প্রবেশন অফিসার মাইকেল কক্সের কাছে চিঠিও পাঠান ওরল্যান্ডোর প্রবেশন অফিসার।

এরপরও সাদী অরল্যান্ডোতে গিয়ে হাজিরা না দেওয়ায় তাকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা জারি হয়।

বরিশালের সাদী ইতোপূর্বে নানা ধরনের প্রতারণা, জালিয়াতির মামলায় ২৭ বার গ্রেপ্তার হন যুক্তরাষ্ট্রে। প্রতিবারই ছোটখাটো শাস্তি হয় তার।

২০১৫ সালের জানুয়ারিতে ছয় কংগ্রেস সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে তারেক রহমানের পক্ষে একটি বিবৃতি প্রচার করেছিলেন সাদী। তা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা ওঠে। প্রবাসী বিএনপি নেতারাও তা নিয়ে বিব্রত হওয়ার কথা স্বীকার করে তাকে দল থেকে বহিষ্কারের কথা জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here