নিউইয়র্কে বাংলাদেশি ইমাম হত্যার প্রেক্ষিতে টুইটার ক্যাম্পেইন

0
107
1471180176আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক রাজ্যের কুইনস শহরে বাংলাদেশি ইমাম ও তার সহকারীকে গুলি করে হত্যার প্রেক্ষিতে টুইটারে স্থানীয় মুসলিম কমিউনিটির সমর্থনে ক্যাম্পেইন শুরু হয়েছে। #আই ওয়াক উইথ ইউ (আমি তোমার পাশে আছি) হ্যাশ ট্যাগ দিয়ে মুসলিমদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করছে মার্কিন নাগরিকরা।
দুই বছর আগে বাংলাদেশ থেকে নিউইয়র্কে যাওয়া ইমাম মাওলানা আলাউদ্দিন আকনজি (৫৫) ও তার সহকারী তাহারা উদ্দিনকে (৬৪) আল-ফুরকান জামে মসজিদের সামনে শনিবার স্থানীয় সময় দুপুর ১টা বেজে ৫০ মিনিটে গুলি করে হত্যা করা হয়। স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, হামলাকারী তাদের ঠিক পেছন থেকে এসে সরাসরি মাথায় গুলি করেছে। পুলিশ জানিয়েছে, তাদের ঠিক কি কারণে হত্যা করা হয়েছে তা নিশ্চিত নয়। ধারণা করা হচ্ছে মুসলিম বিদ্বেষ থেকে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে।
আকনজির বন্ধুরা জানিয়েছেন, তিনি মাত্রই নামাজ পড়ে মসজিদ থেকে বের হয়েছিলেন। আকনজির ভাগ্নে রাহি মজিদ নিউ ইয়র্কের স্থানীয় একটি দৈনিককে বলেছেন, তিনি সজ্ঞানে কোনো মাছিকেও আঘাত করতেন না। আপনি তাকে রাস্তায় দেখলে বুঝতেন কী শান্তি তিনি বয়ে নিয়ে আসেন।
মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডের পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে অনেক মানুষ এই বাংলাদেশি ইমামের জন্য শোক প্রকাশ করেছে। টুইটারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্য থেকে মানুষ  #আই ওয়াক উইথ ইউ (আমি তোমার পাশে আছি) হ্যাশ ট্যাগ সহ টু্ইট করে মুসলিমদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে। উল্লেখ্য, হ্যাশট্যাগটি সিডনিতে ২০১৪ সালে জিম্মি পরিস্থিতির সময় মুসলিম বিদ্বেষ বেড়ে যাওয়ায় পরে মুসলিম কমিউনিটির সমর্থনে #আই উইল রাইড উইথ ইউ এর দ্বারা অনুপ্রাণিত।
সিনসিনাটি থেকে লেক্সি জেমিসন মার্শ লিখেছেন, সিনসিনাটির প্রতিনিধিত্ব করছি, আমি তোমাদের পাশেই আছি। পৃথিবীর মধ্যে যে পরিবর্তনটা দেখতে চাও শান্তিপূর্ণভাবে সেটা নিজের মধ্যে করো।
ফ্লোরিডা থেকে স্যাম মান্তা নামের একজন লিখেছেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে ফ্লোরিডায় কোনো বড় মুসলিম কমিউনিটি নেই, যদি এখানে তোমার বন্ধুর প্রয়োজন হয় আমাকে ডেকো। ফিনিক্স অঙ্গরাজ্য থেকে জ্যাকেমস লিখেছেন, #আই ওয়াক উইথ ইউ-আমি ফিনিক্সের বাসিন্দা, লম্বা একজন মানুষ যে হাঁটতে পছন্দ করবে তোমার পাশে।
ওয়াশিংটনের বাসিন্দা নাটালি লিখেছেন, ওয়াশিংটনের মুসলিম বন্ধুরা, কোথাও বাইরে যেতে চাইলে আমাকে নিয়ে যেতে পারো। আলাস্কার অ্যাঙ্কোরেজ শহরের বাসিন্দা লিয়ানা ব্রুক্স বলেছেন, অ্যাঙ্কোরেজের মুসলিম বন্ধুরা- তোমাদের এখানে ভয় পাওয়ার কারণ নেই। তোমাদের যে ঘৃণা সইতে হচ্ছে তার জন্য আমি দুঃখিত।
শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রই নয় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই হ্যাশট্যাগে সহমর্মিতার বার্তা প্রকাশিত হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড থেকে একজন লিখেছেন, অ্যাডিলেডের কোনো মুসলিম যদি চায় তাহলে মসজিদ যাওয়ার সময় তোমার সঙ্গে যাবো আমি।
ওজোনা পার্কে এই হত্যাকাণ্ড চালানোর পর বন্দুকধারী সেখান থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে পুলিশ হত্যাকারীকে খুঁজছে বলে জানা যায়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here