নিউইয়র্কে অ্যাসাল ব্রঙ্কস চ্যাপ্টার কমিটির বর্ণাঢ্য অভিষেক

0
110

নিউইয়র্ক : যুক্তরাষ্ট্রে এশিয়ার ৮ দেশীয় প্রবাসীদের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগঠন অ্যালায়েন্স অব সাউথ এশিয়ান আমেরিকান লেবার – অ্যাসাল ব্রঙ্কস চ্যাপ্টারের নতুন কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠিত হয়েছে। নিউইয়র্কে ব্রঙ্কসের খান টিউটরিয়াল হলে গত ৩০ শে সেপ্টেম্বর শনিবার সন্ধ্যায় অ্যাসাল’র প্রতিষ্ঠাতা এবং ন্যাশনাল কমিটির প্রেসিডেন্ট লেবার ইউনিয়ন লীডার মাফ মিসবাহ উদ্দীন ব্রঙ্কস চ্যাপ্টারের ৭৩ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটিকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

বর্ণাঢ্য এ অভিষেক অনুষ্ঠানে অ্যাসাল’র প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট মাফ মিসবাহ উদ্দীন ছাড়াও অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ন্যাশনাল কমিটির সেক্রেটারী করিম চৌধুরী, উইমেন্স কমিটির চেয়ার শাহানা বেগম, কুইন্স চ্যাপ্টারের প্রেসিডেন্ট মনিরুল ইসলাম, ভাইস প্রেসিডেন্ট মঞ্জুর শেখ, ব্রঙ্কস চ্যাপ্টারের প্রেসিডেন্ট সৈয়দ তাহমীদুল হক, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মাসুদ রহমান, সেক্রেটারী মোজাম্মেল হোসেন মুরাদ প্রমুখ।

এছাড়া কী-নোট স্পীকারের বক্তব্য রাখেন স্থানীয় এসেম্বলীম্যান লুইস সেপুলভেদা এবং বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ভোটার অ্যাসিস্টেন্স কমিশন মেম্বার মাজেদা উদ্দিন।এসেম্বলীম্যান লুইস সেপুলভেদা অ্যাসাল’র কর্মকান্ডের প্রশংসা করে বলেন, দক্ষিণ এশীয় কমিউনিটিকে শক্তিশালী করার লক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে অ্যাসাল প্রতিষ্ঠাতা মাফ মিসবাহ উদ্দীন তার বক্তব্যে বলেন, আমেরিকায় দক্ষিণ এশীয়দের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ক্ষমতায়নসহ কমিউনিটি এবং মূলধারার মধ্যে সেতুবন্ধন রচনার প্রেরণাদায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছে অ্যাসাল। তিনি বলেন, শুধু আত্মকেন্দ্রিক না হয়ে আমাদের অবশ্যই অন্যদের জীবনেও সফল হওয়ার জন্য প্রচেষ্টা চালাতে হবে। খুলে দিতে হবে সাহায্যের দ্বার। সে লক্ষেই এগিয়ে যাচ্ছে অ্যাসাল।

২০১৭-২০১৮ সালের জন্য গঠিত ৭৩ সদস্য বিশিষ্ট অ্যাসাল ব্রঙ্কস চ্যাপ্টারের অভিষিক্ত কর্মকর্তারা হলেন : প্রেসিডেন্ট সৈয়দ তাহমীদুল হক, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মাসুদ রহমান, সেক্রেটারি মোজাম্মেল হোসেন মুরাদ, করেসপন্ডিং সেক্রেটারী শোয়েব মুহাম্মদ, ট্রেজারার মো. বশির মিয়া, প্রেসিডেন্ট ইমিরাটস ইঞ্জিনিয়ার আবু শাকুর, এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর মো. নাসির মিয়া, উইমেন্স কমিটি চেয়ার নাদিরা তারফদার, অর্গানাজিং ডাইরেক্টর ইব্রাহিম বারো ভূইয়া, ইমিগ্রেশান ডাইরেক্টর মোহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম খান ও পলিটিকেল একশান ডাইরেক্টর আবু নোমান রহমান।

ভাইস প্রেসিডেন্ট : খাজা মঈনুদ্দিন, মোহাম্মদ নূরুল আমিন, মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, আনোয়োর চৌধুরী, আদিল মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন, শামীম মিয়া, শিহাব উদ্দিন, লিয়াকত হোসেন, মোহাম্মদ কবির, মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম, মো. আনোয়ারুল হক, মো. এম রহমান, মো. সাজ্জাদুল ইসলাম, রুমেল সিদ্দিকী, আব্দুল হান্নান, মোঃ আলাউদ্দিন, শেরওয়ান খলিল চৌধুরী, তরিকুল ইসলাম মির্ধা, আবদুর রব, ফয়সাল আহমেদ, শেখ মো. আলম, মো. এম আলী, মোহাম্মদ এইচ কবির, বজলুর রহমান, মীর বাশার, মো. আবদুর রহমান এবং মোহাম্মদ এম রশিদ।

ট্রাস্টি বোর্ড : মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, বেগম নাজমা, রিয়াজ কামরান, শরীফ এম ইসলাম, ধনদেব ওয়ারগোদা, মাইকেল বেল্জার এবং মোহাম্মদ এইচ কবীর। উইমেন্স কমিটি : নাদিরা তরাফদার, মমতা আহমেদ, বেগম নাজমা, কাজী ফাহমিদা ইসলাম, তাহমিনা মিয়া, শাহিদা নাহার, নাসরিন খায়ের, দীমুথু রানাসিং, সুলতানা পারভীন, পারভিন্দের কর, আবু হাসনাত, এবং আচিয়া খানম।

ইয়ুথ কমিটি : ফাহিম রফিক, সাজিদ আবদে মুনিব, ফাতিন নাবিল, সৈয়দ মাহির আদীব, আবুল হায়াত, মো. সাকিব খান, শরীফ উদ্দিন, সৈয়দ শাদাব, শাহেরিন খানম, আকাশ রহমান, সৈয়দ সরোয়ার, নিজুম খান, আদনান শাদাব, রাফীদ আজাদ, হাসিব খান, আবুল হাসনাত এবং নাসিফ খান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here