নারায়ণগঞ্জে সেনা নয়: সিইসি

0
97

rokibস্টাফ করেসপন্ডেন্ট: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিকের চেয়ে ভালো পরিবেশ বিরাজ করছে বলে দাবি করে সেনা মোতায়েনের প্রয়োজন দেখছেন না কাজী রকিব উদ্দীন আহমেদ।

শনিবার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও জেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে আইন শৃঙ্খলা বৈঠক শেষে এ কথা বলেন তিনি।

কাজী রকিব বলেন, “নারায়নগঞ্জে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিকের চেয়ে সুন্দর রয়েছে। আগামীতে তা আরও উন্নত হবে। এখন পর্যোন্ত সেনা মোতায়েনের মতো কোনো পরিস্থিতি নেই।”

প্রথম দলভিত্তিক এ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ সাত দলের প্রার্থী রয়েছে মেয়র পদে। নির্দলীয় কাউন্সিলর পদে ১৫৬ জন সাধারণ ও সংরক্ষিত পদে ৩৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। ২২ ডিসেম্বর এ নগরে ভোট হবে।

শেরেবাংলনগরস্থ এনইসি মিলনায়তনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পুলিশ, র্যা ব, বিজিবি, আনসার-ভিডিপি, কোস্টগার্ড, গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি, রিটার্নিং কর্মকর্তা, জেলা ও স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।বৈঠকে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা নারায়ণগঞ্জে ভোটের পরিস্থিতি ভালো রয়েছে বলে জানান সিইসি।

বৈঠক শেষে বেলা ১ টায় সিইসি জানান, নারায়ণঞ্জে সন্ত্রাসী-মাস্তান ও ববহিরাগত অনুপ্রবেশকারী যারা নির্বাচনে বিঘ্ন সৃষ্টি করবে তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের আইন শৃঙ্খলার বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো ইসির প্রস্তাবিত পরিপত্রে বলা হয়েছে, কেন্দ্রভিত্তিক ২২ থেকে ২৪ জন করে নিরাপত্তা সদস্য নিয়োজিত থাকবে। পুলিশ-এপিবিএন-ব্যাটালিয়ন আনসারের সমন্বয়ে ২৭ ওয়ার্ডে একটি করে মোবাইল টিম ও ৯টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, র্যা বের ২৭টি, বিজিবি’র ১৪ প্লাটুন ও কোস্টগার্ডে ৩ প্লাটুন সদস্য টহলে থাকবে।২২ ডিসেম্বর ভোট হবে এ সিটি করপোরেশনে।
স্ট্যাটিক ফোর্স হিসেবে ভোটকেন্দ্রের বাইরে র্যা ব -পুলিশের টিম ও বিজিবি’র ৮ প্লাটুন রিজার্ভ ফোর্স সংরক্ষিত রাখার প্রস্তাবও রেখেছে ইসি।

ইতোমধ্যে বিএনপি’র পক্ষ থেকে ভোটের অন্তত এক সপ্তাহ আগে থেকে নির্বাচনী এলাকায় সেনা মোতায়েনের দাবি করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী বলেছে, কমিশন সুষ্ঠু ভোটের জন্য যা করা দরকার সে পদক্ষেপ নেবে।

যত প্রার্থী ও কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে ২৭টি ওয়ার্ডে ১৭৪টি কেন্দ্র ও ১ হাজার ৩০৪টি ভোটকক্ষ রয়েছে।
ঝুঁকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্রের পাহারায় অস্ত্রসহ ৭জন পুলিশ, অস্ত্রসহ ৩জন ব্যাটালিয়ন আনসার, অস্ত্রসহ দুইজন অঙ্গীভূত আনসার, লাঠিসহ ১২জন আনসার/ভিডিপি সবমিলিয়ে ২৪জন নিরাপত্তা কর্মী থাকবে। সাধারণ কেন্দ্রে ওই সংখ্যা হবে ২২জন। এতে অস্ত্রধারী নিরাপত্তা কর্মী দুইজন কম থাকবে।

তবে সব ভোটকেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র বিবেচনায় ২৪ জন করে নিরাপত্তা সদস্য নিয়োজিত রাখা হবে বলে জানান রিটার্নিং কর্মকর্তা।গত রোববার প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সময় পার হয়ে মেূয়র পদে ৭ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩৮ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ১৫৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

দলভিত্তিক প্রথম সিটি নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জে মেয়র পদে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী, বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, এলডিপির কামাল প্রধান, কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস, ইসলামী ঐক্যজোটের মুফতি এজহারুল হক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here