নতুন মন্ত্রীদের প্রথম দিন

0
64

ঢাকা: মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ ও রদবদলের পর নতুন নিয়োগ পাওয়া তিন মন্ত্রী ও এক প্রতিমন্ত্রীর মধ্যে কয়েকজন গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ নিজ দপ্তরে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। তারা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। সাংবাদিকদের কাছে মন্ত্রণালয় পরিচালনায় নিজেদের কর্মপরিকল্পনার কিছু কথা জানান। দপ্তর রদবদল হওয়া দু’জন মন্ত্রী তাদের দপ্তরে উপস্থিত ছিলেন না। তারা রোববার নতুন দপ্তরে যোগ দেবেন বলে জানা গেছে।

গত চার বছর বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা রাশেদ খান মেননের কাছ থেকে গতকালই আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন নবনিযুক্ত মন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামাল। দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বক্তব্যের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন দুই মন্ত্রী। এ সময় ওই মন্ত্রণালয়ের সচিব এস এম ফারুক হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

নবনিযুক্ত বিমানমন্ত্রী শাহজাহান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, নেতিবাচক ইমেজ দূর করে বিমান যাতে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপ পায়, সে জন্য তিনি কাজ করে যাবেন। অনেকেই তার দায়িত্বকে আগুনে নিক্ষেপের সঙ্গে তুলনা করলেও তিনি পানিতে পরিণত করবেন। নতুন পরিকল্পনা নিয়ে নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজ করে যাবেন।

নতুন মন্ত্রীর উদ্দেশে বিদায়ী মন্ত্রী মেনন অবশ্য বলেন, বিমান নিয়ে গালি খেতে হতে পারে।

এদিকে দায়িত্ব নেওয়ার প্রথম দিনেই ঝুলে থাকা মোবাইল অপারেটরদের টাওয়ার শেয়ারিং লাইসেন্স ও ইন্টার কানেকশন এক্সচেঞ্জ বা আইসিএক্স নীতিমালা সংশোধনীর চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছেন নবনিযুক্ত ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। নতুন নীতিমালার কারণে যত্রতত্র টাওয়ার স্থাপন বন্ধ হবে। এতে ব্যবহারকারী কোম্পানিগুলোরও অর্থ সাশ্রয় হবে। প্রাথমিকভাবে উন্মুক্ত নিলামের মাধ্যমে চারটি কোম্পানিকে টাওয়ার শেয়ারিং লাইসেন্স দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। তবে কোনো মোবাইল অপারেটর কোম্পানি এ নিলামে অংশ নিতে পারবে না। নীতিমালা অনুযায়ী, বর্তমান অপারেটরদের টাওয়ারগুলো বিক্রি করতে হবে বা লিজ দিতে হবে। এছাড়া আইসিএক্স নীতিমালায় রাজস্ব ভাগাভাগিতে সরকারের অংশ ৬৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫০ শতাংশ করা হয়েছে। এতে সরকারের বকেয়া আদায় বাড়বে। উচ্চ রাজস্ব শেয়ারিংয়ের কারণে সংশ্নিষ্ট কোম্পানিগুলো এ হার কমানোর জন্য দীর্ঘদিন দাবি জানিয়ে আসছিল।

এই দুই নীতিমালার সংশোধন অনুমোদনের আগে মোস্তাফা জব্বার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন। এ সময় তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ইন্টারনেটের গতি ও সাশ্রয়ী মূল্য নিশ্চিত করতে না পারলে বাংলাদেশ ডিজিটালাইজড হবে না। জনগণের অধিকার আছে, উপযুক্ত সেবা যাতে তারা পায়। দুর্বলতা থাকলে তা কাটিয়ে ওঠা হবে।

এদিকে, দপ্তর পরিবর্তন হয়ে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়া আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এবং পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়া ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ গতকাল সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে যাননি। আগামী রোববার দপ্তরে যোগ দেবেন বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী থেকে একই মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া নারায়ণ চন্দ্র চন্দ গতকাল দপ্তরে যাননি। তিনি দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া অ্যাডভোকেট তারানা হালিমও নতুন দপ্তরে যাননি।

গত মঙ্গলবার তিনজন মন্ত্রী ও একজন প্রতিমন্ত্রী শপথ গ্রহণের পর বুধবার তিন মন্ত্রী ও এক প্রতিমন্ত্রীর দপ্তর পুনর্বণ্টনসহ মন্ত্রিসভায় রদবদল হয়। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রধান তিন শরিক দলের গুরুত্বপূর্ণ তিন নেতার মন্ত্রীর দপ্তর বদল হয়েছে। তাদের মধ্যে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেননকে সমাজকল্যাণমন্ত্রী করা হয়। পানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে করা হয়েছে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী। পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। মহাজোটের আরেক শরিক জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনুর তথ্য মন্ত্রণালয়ে নতুন করে একজন প্রতিমন্ত্রী দেওয়া হয়েছে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিমকে তথ্য প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে।

এদিকে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া রাজবাড়ী-১ আসনের এমপি কাজী কেরামত আলীর জন্য কক্ষ প্রস্তুত করা হয়নি। আগামী রোববার তিনি যোগদান করতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here