তুরস্ক ও পাকিস্তানের সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে

0
15

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: সামরিক দিক দিয়ে মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ তুরস্ক ও পারমাণবিক শক্তিধর দেশ পাকিস্তান নিজেদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও দৃঢ় করবে। বিশেষ করে দ্বিপক্ষীয় ব্যবসা-বাণিজ্য আরও সম্প্রসারণ করবে বলে দুই দেশ বলে সম্মত হয়েছে।

মঙ্গলবার তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভাসুগুলো টেলিফোনে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ কোরেশির সঙ্গে কথা বলেন।

এ সময় তারা আঙ্কারা ও ইসলামাবাদের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নিয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা করেন বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পাক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে আনাদোলু এজেন্সি জানায়, টেলিফোনে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন- পাকিস্তানের সঙ্গে তুরস্কের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হওয়ার কারণ বিশ্বাস, মূল্যবোধ, সভ্যতা, ইতিহাস, পারস্পরিক আস্থা ও সমর্থন।

এ সময় তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে অভিনন্দন জানান।

টেলিফোন সংলাপে দুই নেতা আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য কাজ করার বিষয়ে ভূমিকা নেয়ার বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করেন।

এ ছাড়া তুরস্কের পক্ষ থেকে পাকিস্তানের জনগণকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি দেশটির শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন। নতুন নেতৃত্বে পাকিস্তানে সমৃদ্ধি হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। টেলিফোন সংলাপে পাকিস্তান-তুরস্ক ও আফগানিস্তানের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় সামিট আয়োজনের প্রস্তাব দেন। এ ছাড়া শিগগিরই পাকিস্তানের আমন্ত্রণে দেশটির সফরের বিষয়েও সম্মত হয়েছেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

নেদারল্যান্ডস নিয়ে জাতিসংঘে অভিযোগ উত্থাপন করবে পাকিস্তান

নেদারল্যান্ডসের ইসলামবিরোধী কার্টুন প্রতিযোগিতার বিষয়টি জাতিসংঘে উত্থাপন নিয়েও কথা বলেন আলোচিত দুই মুসলিম দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, নেদারল্যান্ডসের ইসলামবিরোধী কার্টুন প্রতিযোগিতার বিষয়টি জাতিসংঘে উত্থাপন করা হবে।

মুসলিম বিশ্ব সামগ্রিকভাবে পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হওয়ায় নেদারল্যান্ডস বারবার ইসলামবিরোধী কার্টুন সংক্রান্ত ঘটনা ঘটছে বলেও জানান পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী।

পাকিস্তান সিনেটে দেয়া প্রথম ভাষণে এসব কথা বলেন ইমরান খান। তিনি বলেন, ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা- ওআইসির অনেক আগেই এ বিষয় পদক্ষেপ নেয়া এবং এ বিষয়ে বাস্তবভিত্তিক কৌশল গ্রহণ করা উচিত ছিল।

কুরুচিপূর্ণ এমন তৎপরতার মাধ্যমে বিশ্বের মুসলমানদের আবেগকে আঘাত করা হচ্ছে, কিন্তু ওআইসি এখনও এ তৎপরতার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি বলে জানান তিনি।

এর আগে নেদারল্যান্ডসের এ তৎপরতার বিরুদ্ধে পাক সিনেটে সর্বসম্মত নিন্দা প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়েছে।

সূত্র: এআরআই নিউজ, আনাদলু এজেন্সি

LEAVE A REPLY