‘ডিভোর্স বিল’ দেবে না ব্রিটেন

0
98

untitled-20_289934আন্তর্জাতিক ডেস্কা: ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে ব্রিটেনের বিচ্ছিন্ন হওয়ার আলোচনা ক্রমেই নগ্ন ও উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। ইউরোপের এই রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক জোটকে চাইলেই ১০০ বিলিয়ন ইউরো ডিভোর্স বিল দেবে না ব্রিটেন। ব্রেক্সিট মন্ত্রী ডেভিড ডেভিস এক টেলিভিশনে আলোচনার সময় এ কথা বলেন। গতকাল বুধবার এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি।

টেলিভিশন চ্যানেল আইটিভির গুডমর্নিং ব্রিটেন অনুষ্ঠানে বুধবার অতিথি ছিলেন ডেভিস। এতে তিনি বলেন, ইইউ যা চাইবে তাই দেব না। যতটা ন্যায্য ও আইনসিদ্ধ ততটা অর্থই আমরা ইইউকে দেব।

ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রেক্সিটের জন্য ইইউ ৬০ বিলিয়ন ইউরো বেশি চাইছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ডেভিস এ কথা বলেন। ইইউর প্রধান সমন্বয়কারী মাইকেল বার্নিয়ার জানিয়েছেন, ধার্য অর্থ অবশ্যই শোধ করতে হবে। এ বিল ব্রিটেনকে শায়েস্তা করতে তৈরি করা হয়নি, এটি ইইউর ন্যায্য পাওয়া। আন্তরিকভাবে বেক্সিট হোক তাতে কোনো আপত্তি নেই উল্লেখ করে বার্নিয়ার হুঁশিয়ার করেন, ‘সময় ঘনিয়ে আসছে’।

বার্নিয়ার ব্রেক্সিট ম্যানডেট প্রকাশ করার পরপরই এক অনুষ্ঠানে বলেন, ইইউ এ ম্যান্ডেটের প্রতিটি শর্ত বা দাবি-দাওয়া বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে। তিনি বলেন, গত দশ মাসের চলমান অনিশ্চয়তা কাটিয়ে উঠতে যত দ্রুত সম্ভব ব্রেক্সিট আলোচনা শুরু হওয়া দরকার। তিনি আভাস দেন, সামনের জুনে ব্রিটেনের আগাম সাধারণ নির্বাচনে তেরেসা বা অন্য যে-ই নির্বাচিত হোন, ইইউর বেক্সিট ম্যান্ডেটে এর কোনো প্রভাব পড়বে না। কঠোর বেক্সিটই ইইউর কাম্য। তিনি মনে করেন, আলোচনা প্রক্রিয়া ঠাণ্ডা মাথায় এবং সমাধানের লক্ষ্য নিয়েই এগোবে। তবে, দ্রুত এবং জটিলতা ও চাপমুক্তভাবে এ আলোচনা শেষ হবে, এমন আশা করা দুরাশা। তবু ইইউর নাগরিকদের ওপর যেন এর প্রভাব কম হয় অবশ্যই সে চেষ্টা করা হবে।

ইইউ সূত্রে জানা যায়, ব্রাসেলসে সংগঠনটির কর্মকর্তা এ বিল নিয়ে কোনো ধরনের কাটছাঁটের আলোচনায় যাবে না। তাই এ বিল নিয়ে কঠোর আলোচনায় মুখোমুখি হবে ব্রিটেন ও ইইউ।

গতকাল বুধবার ফিন্যান্সিয়াল টাইমস পত্রিকা দাবি করেছে, ব্রেক্সিট বিলটি বর্তমানে অনেকে বেড়ে গেছে, এটি ৬০ থেকে ১০০ বিলিয়ন ইউরোতে পরিণত হয়েছে। বার্নিয়ার বলেছেন, এখনও দু’পক্ষের দিক থেকে কোনো বিল চূড়ান্ত করা হয়নি। তবে দু’পক্ষের পারস্পরিক শ্রদ্ধার ভিত্তিতে তা নির্ধারিত হতে পারে।

এদিকে ব্রিটেনের পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার পর গতকাল বুধবার রানীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তেরেসা মে। সাক্ষাৎ শেষে ১০নং ডাউনিং স্ট্রিটে দেওয়া সংবাদ বিবৃতিতে তিনি বলেন, ব্রিটেনের আসন্ন জাতীয় নির্বাচন প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here