ট্রাম্পের জন্য প্রয়োজনে রীতি ভাঙবেন ওবামা

0
211

_92573344_mediaitem92573343আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আমেরিকার মূলনীতি বিরুদ্ধ কিছু করলে ক্ষমতা বদলের পরও ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মুখ খুলবেন বলে জানিয়েছেন বারাক ওবামা। পেরুর রাজধানী লিমায় এপেক সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে এ মন্তব্য করেন ওবামা।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্টের কোনো সিদ্ধান্তের সমালোচনা করা সাবেক প্রেসিডেন্টের জন্য রীতিবিরুদ্ধে বলে মনে করা হয়। ওবামা বলেন, তিনি ট্রাম্পকে সহযোগিতা করতে চান। তাকে সময় দিতে চান। কিন্তু মার্কিন মূল্যবোধবিরোধী কিছু করলে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কথা বলবেন তিনি।

শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা বদলের আঙ্গীকার করে ওবামা আরো বলেন, জর্জ বুশ যে শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়ায় তার হাতে ক্ষমতা তুলে দিয়েছিল, একই অঙ্গীকার তিনি ট্রাম্পের বেলাতেও রক্ষা করবেন।

২০১৩ সাথে ওমাবা দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হওয়ার পর সিএনএন জর্জ ডব্লিউ বুশের একটি বিশেষ সাক্ষাৎকার নেয়। সেসময় ওবামার রাষ্ট্র পরিচালনার বিষয়ে জানতে চাইলে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন জর্জ ডব্লিউ বুশ।

সিএনএন এর প্রশ্নের জবাবে বুশ বলেন, ‘আমি মনে করি আমার মন্তব্য ভালো কোনো ফল বয়ে আনবে না। এটা (প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব) একটা কঠিন কাজ। তার অনেকগুলো কর্মপরিকল্পনা আছে। একজন সাবেক প্রেসিডেন্টের সেসব বিষয়ে কথা বলার দরকার নেই।’

বুশের এমন অবস্থানই যুক্তরাষ্টের ঐতিহ্য। বর্তমান প্রেসিডেন্টের কোনো সিদ্ধান্তের সমালোচনা থেকে সাবেক প্রেসিডেন্টরা সাধারণত বিরত থাকে।

কিন্তু ওবামা বলেছেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট হিসেবে নয়, বরং একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবেই যুক্তারষ্ট্রের মূল্যবোধ রক্ষায় তার ভূমিকা আছে। সে অবস্থান থেকেই তিনি প্রতিবাদ করবেন, যদি কখনো সে ধরণের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

বলে রাখা ভালো, বারাক হুসেইন ওবামা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৪তম রাষ্ট্রপ্রধান। ২০১২ খ্রিস্টাব্দের নভেম্বরে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো মার্কিন রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালের ৯ অক্টোবর ওবামাকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। বারাক ওবামা মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সদস্য।ওবামা ২০০৮ সালের ৪ঠা নভেম্বর অনুষ্ঠিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হন এবং ২০০৯ সালের ২০শে জানুয়ারি শপথ গ্রহণ করেন। অন্যদিকে ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের একজন ধনাঢ্য ব্যবসায়ী, বিনিয়োগকারী, বিশিষ্ট সামাজিক ব্যক্তিত্ব, সাহিত্যিক এবং ২০১৬ সালের আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বিজয়ী প্রার্থী। তিনি দ্য ট্রাম্প অর্গানাইজেশ্যানের পরিচালক এবং ট্রাম্প এন্টারটেইনম্যান্ট রিসোর্টের প্রতিষ্ঠাতা।

সূত্র:বিবিসি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here