ট্রাম্পকে অভিশংসনের প্রথম নথি দাখিল ডেমোক্র্যাটদের

0
79

untitled-46_307844আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসনের প্রথম প্রস্তাব দাখিল করেছেন ডেমোক্রেটিক দলের কংগ্রেসম্যান ব্রাড শারম্যান। স্থানীয় সময় বুধবার বিকেলে হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভে অভিশংসন অভিযোগের প্রথম নথি দাখিল করেন ক্যালিফোর্নিয়ার এই রাজনীতিক। তবে হোয়াইট হাউস বিষয়টিকে পাত্তা দিচ্ছে না।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবেও অনাগ্রহ দেখিয়েছে হোয়াইট হাউস। ট্রাম্প ঘনিষ্ঠদের বিশ্বাস, রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসন প্রস্তাব ধোপে টিকবে না। খবর এএফপি, ইনডিপেনডেন্ট ও সিডনি মর্নিং হেরাল্ডের। কংগ্রেসম্যান ব্রাড শারম্যান হাউসে উত্থাপিত এক আর্টিকেলে অভিযোগ করেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের তদন্তকারী সংস্থা এফবিআইর সাবেক পরিচালক জেমস কোমিকে বরখাস্ত করার মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বিচারের পথে বাধা সৃষ্টি করে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। তিনি শপথ লঙ্ঘন করেছেন। লঙ্ঘন করেছেন সাংবিধানিক সীমারেখা।

শারম্যান বলেন, এমন ঘটনা অভিশংসন ও বিচারের দাবি রাখে। এমনকি তাকে প্রেসিডেন্টের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ারও দাবি রাখে। যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রদ্রোহ, ঘুষ গ্রহণ, উচ্চমাত্রার অপরাধ, অশালীন আচরণের জন্য অভিশংসন করা যায়। এর মধ্যে বিচারে বাধা সৃষ্টি করা অন্যতম গুরুতর অপরাধ। আর্টিকেলের ওপর বক্তব্যে শারম্যান আরও বলেন, তিনি আশা করেন না, অবিলম্বে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হবে। তা সত্ত্বেও তিনি এটা করেছেন। কারণ তার বিশ্বাস, এতে হোয়াইট হাউসের বিষয়ে হস্তক্ষেপের বিষয়টি উৎসাহিত হবে। অনিয়ন্ত্রিত বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণে নির্বাহী শাখাগুলোকে উৎসাহিত করবে।

এদিকে ব্রাড শারম্যানের এই আর্টিকেল যদি প্রতিনিধি পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে পাস হয়, তাহলেই পরবর্তী পদক্ষেপের দিকে অগ্রসর হবে ট্রাম্পের অভিশংসন প্রক্রিয়া। কিন্তু তার এ আর্টিকেল পাস হওয়ার সম্ভাবনা কম। কারণ, হাউস ও সিনেটের নিয়ন্ত্রণ এখন রিপাবলিকানদের হাতে।

ট্রাম্পের মন্তব্যের বিরোধিতা নতুন এফবিআই প্রধানের : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের বিষয়ে তদন্তকে ‘রাজনৈতিক ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অর্থহীন তদন্ত’ বলে টুইট করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে ফেডারেল গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইর নতুন প্রধান হিসেবে ট্রাম্পেরই মনোনীত ক্রিস্টোফার রে ওই মন্তব্যের বিরোধী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here