জার্মানিতে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বসাতে চাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

0
31

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: ইউরোপে প্রতিরক্ষা জোরদার করতে জার্মানিতে শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েনের অপেক্ষায় আছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী।

দুই দেশের সামরিক কর্মকর্তাদের মধ্যে এ নিয়ে প্রাথমিক আলোচনাও হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এতে মস্কোর সঙ্গে নতুন করে উত্তেজনার জন্ম দেবে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, পেন্টাগন ইউরোপে টার্মিনাল হাই অ্যালটিটুড এরিয়া ডিফেন্স (থাড) ক্ষেপণাস্ত্র-বিধ্বংসী সিস্টেম মোতায়েন করা নিয়ে আলোচনা করেছে।

মার্কিন এক সামরিক কর্মকর্তা বলেছেন, থাড সিস্টেম জার্মানির রামস্টাইন বিমানঘাঁটিতে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে জার্মানির সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে। ওই ঘাঁটিটি ইউরোপে মার্কিন বিমান বাহিনী এবং নেটো জোটের এয়ার কমান্ডের সদরদপ্তর।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ইউরোপীয় কমান্ড বহু বছর ধরেই ইউরোপে থাড সিস্টেম মোতায়েনের জন্য চাপ দিয়ে আসছে। আর জার্মান কর্মকর্তারাও এ ব্যবস্থা মোতায়েনের জন্য দ্বার খোলা রেখেছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৫ সালের ইরান পরমাণু চুক্তি থেকে সরে আসার পর এ চুক্তির ভবিষ্যৎ নিয়ে ইউরোপের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বন্দ্ব চলছে। ইরানের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উন্নয়ন কর্মসূচি নিয়ে দু’পক্ষই উদ্বিগ্ন।

ইরানের শাহাব-৩ ক্ষেপণাস্ত্র ২ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে দক্ষিণ ইউরোপে আঘাত হানতে সক্ষম। ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ড বলেছে, তারা কোনো হুমকি পেলে ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা আরো বাড়াবে।

মিসাইল ডিফেন্স অ্যাডভোকেসি এলায়েন্সের প্রধান রিকি এলিসন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সঙ্গে বিশ্বের ছয় শক্তিধর দেশের পারমাণবিক চুক্তি থেকে সরে যাওয়ার পর ইরান ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠায় দেশটিকে নিয়ে উদ্বেগ আরো বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে ইউরোপে থাড মোতায়েনের প্রয়োজনীয়তা আরো বেড়েছে বলেই মনে করেন।

জার্মানির এক ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তা সম্ভাব্য হুমকি সম্পর্কে আরো ভালভাবে ওয়াকিবহাল হওয়া এবং পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি নজরে রাখার জন্য ইউরোপজুড়ে আরো অনেক রাডার বসানো প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগ অবশ্য জার্মানিতে থাড সিস্টেম বসানোর কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here