জাতীয় স্বার্থবিরোধী কোন চুক্তি করবে না সরকার: কাদের

0
90
obidul-kader_283034চট্টগ্রাম ব্যুরো: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বাংলাদেশের জন্য ক্ষতিকর এবং দেশের স্বার্থবিরোধী কোনো ধরনের চুক্তি করবে না সরকার। ভারতের সঙ্গে কোনো চুক্তি হলে সেটা হবে জনগণ ও জাতীয় স্বার্থ সমুন্নত রেখে, সমতার ভিত্তিতে।’

আওয়ামী লীগ নেতা সেকান্দর হায়াত খানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বৃহস্পতিবার নগরীর মোহরায় মির্জা আহমেদ ইস্পাহানী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ভারতের সঙ্গে বিদ্বেষ রেখে কিছু আদায় করা যাবে না। ভারত থেকে কিছু আদায় করতে হলে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রেখেই করতে হবে। বিএনপি ২১ বছর ধরে ভারতবিরোধী প্রপাগান্ডা চালিয়েছে। কিন্তু ভারতের কাছ থেকে কিছুই আদায় করতে পারেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত যাচ্ছেন বলে এখন বিএনপির গাত্রদাহ শুরু হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘১৩০ কোটি মানুষের দেশ ভারত দুঃসময়ে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল।’

নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজনের সভাপতিত্বে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ সালাম, সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামসহ দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকালে মন্ত্রী নগরীর বহদ্দারহাট কর্ণফুলী সেতুর উভয় পাশে চার লেইনবিশিষ্ট আট কিলোমিটার সড়কের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন। সাত বছর আগে কর্ণফুলী সেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল শুরু হলেও একই প্রকল্পের অধীনে সড়ক নির্মাণের কাজটি আর শুরু হয়নি।

সড়ক নির্মাণ কাজ উদ্বোধনের পর মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা বহু প্রতীক্ষিত। কিন্তু কাজটা শুরু করা যায়নি। এর কারণ টাকা হচ্ছে বিদেশি। বিদেশি টাকার জন্য তাদের কাছে বারবার ধরণা দিতে হয়। বারবার যোগাযোগ করে বিভিন্ন বিষয়ে সম্মতি নিতে হয়। এর ফলে দেরি হয়ে গেছে।’

২৭০ কোটি টাকার এ প্রকল্পের কাজের মধ্যে আছে বহদ্দারহাট ইন্টারসেকশন থেকে কর্ণফুলী সেতুর উত্তর প্রান্তের অ্যাপ্রোচ সড়ক পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার সড়কের উভয় অংশ চার লেইনে উন্নীতকরণ। সেতুর দক্ষিণ পাশে পটিয়ার ত্রিমোহনী পর্যন্ত তিন কিলোমিটার চার লেইনে উন্নীতকরণ। এছাড়া চারটি সেতু, আটটি কালভার্ট ও দু’টি আন্ডারপাস নির্মাণ করা হবে।

LEAVE A REPLY