জাতীয় ঐক্য গড়তে ব্যস্ত বিএনপি

0
228

bnpগুলশানে জঙ্গি হামলার পর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সন্ত্রাসবাদবিরোধী জাতীয় ঐক্য গড়ার ডাক
দিয়েছেন। খালেদা জিয়ার ডাকা এ জাতীয় ঐক্য সফল করতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বিএনপি নেতারা।

বিভিন্ন সভা,সমাবেশ এবং সংবাদ সম্মেলন করে জাতীয় ঐক্যের ব্যাপারে কথা বলছেন তারা।

গত ৫ জুলাই মঙ্গলবার নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল
ইসলাম আলমগীর বলেন, দেশের মানুষ ভালো নেই। এখন কাদা ছোড়াছুড়ির সময় নয়, দলাদলির সময় নয়। দলমত
নির্বিশেষে দেশনেত্রী যে আহ্বান করেছেন, তাতে সাড়া দিয়ে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলাটাই এখন সবচেয়ে বড় দায়িত্ব
বলে আমরা মনে করছি। আমরা আশা করব, সরকার ও সরকারি দল তাদের আন্তরিকতা দিয়ে দলীয় সংকীর্ণতার ঊর্ধ্বে
উঠে মানুষের স্বার্থে, দেশের বৃহত্তর কল্যাণে বিএনপির আহ্বানে সাড়া দেবে, জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করার উদ্যোগ নেবে।

অন্যদিকে ১২ জুলাই মঙ্গলবার বিকেলে রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে গুলশানে হলি আর্টিসান বেকারিতে উগ্রবাদীদের
হামলায় নিহতদের স্মরণে বিএনপি ঘোষিত দেশব্যাপী শোক দিবস উপলক্ষে শোকসভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য
মির্জা আব্বাস বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়ে বলেননি আমাকে ক্ষমতায় বসানো হোক। কারণ
এটা দলীয় সমস্যা নয়। এটা দেশের সমস্যা। সার্বভৌমত্বের প্রতি আক্রমণ। জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে দানবকে দমানো
সম্ভব হবে।

জাতীয় ঐক্য নিয়ে বিএনপির বেশী আগ্রহ থাকলেও এই ঐক্য গড়ার আহবান নাকচ করে দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল
আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ বলছে, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে এখন জাতীয় ঐক্য গড়ে উঠেছে। বিএনপি-জামায়াত
ছাড়া দেশের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ এই ঐক্যে শামিল হয়েছে।

এ বিষয়ে ১৭ জুলাই রোববার স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে
এখন জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়ে গেছে? আমিতো মনে করি জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়ে গেছে। যারা পুড়িয়ে মানুষ মারে অথবা
যুদ্ধাপরাধ করে, তাদের ‘কথা আলাদা’। যাদের ঐক্য হলে সত্যিকারভাবে সন্ত্রাস দূর করা যাবে, তাদের ঐক্য কিন্তু ঠিকই
গড়ে উঠেছে এবং এই ঐক্য থাকবে।

অন্যদিকে ১২ জুলাই মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা মহাজোট কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল
আয়োজিত ধর্মীয় উগ্র মৌলবাদ ও জঙ্গি তৎপরতার বিরুদ্ধে এক মানববন্ধনে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম,
৭১ সালে আমরা ঐক্যবদ্ধ ছিলাম, ঠিক তেমনিভাবে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে এখন জাতীয় ঐক্য গড়ে উঠেছে। দেশের সকল
শ্রেণি-পেশার মানুষ এই ঐক্যে শামিল হয়েছে, একমাত্র বিএনপি-জামায়াত জোট ছাড়া। এদের সঙ্গে জাতীয় ঐক্য সম্ভব
নয়।

এদিকে সরকার যদি জাতীয় ঐক্যের ব্যাপারে রাজি হয় তাহলে বিএনপি জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করবে বলে গুঞ্জন
উঠেছে। এ নিয়ে বিএনপি নেতারা প্রকাশ্যে কোন কথা না বললেও দলের ভেতরে এ নিয়ে আলোচনা চলছে বলেও গুঞ্জন
রটে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here