চার মিডিয়া ছাড়া কথা বললেন না বিচারপতি খায়রুল হক

0
75

ঢাকা: চারটি গণমাধ্যম ছাড়া অন্য গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেননি সাবেক প্রধান বিচারপতি ও আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এবিএম খায়রুল হক।

চারটি গণমাধ্যম হলো- বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর, দৈনিক প্রথম আলো,  দৈনিক জনকণ্ঠ ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে তার আহ্বানে গণমাধ্যমের কর্মীরা আইন কমিশনের কার্যালয়ে গেলে চারটি গণমাধ্যমকে রেখে বাকিদের সামনে কথা বলবেন না বলে জানিয়ে দেন তিনি।

খায়রুল হক বলেন, আমি দুঃখিত। এই চারটি ছাড়া বাকিদের (সংবাদকর্মী) সঙ্গে কথা বলতে চাচ্ছি না।

তিনি বলেন, জনকণ্ঠের স্বদেশ বাবু আমাকে অনুরোধ করলেন, আমি ওকে (ফারজানা রুপা) বললাম ওরা কি থাকতে পারে। প্রথম আলো বলেছে, আমরা আগের সংবাদ সম্মেলনে থাকতে পারি নাই। তাই প্রথম আলোকে আজ  থাকতে বলেছি। ওদেরকে থাকতে বলেছি রুপার অনুমতি নিয়ে। এখানে আর কারো থাকার সুযোগ নেই। আমি দুঃখিত।

এর আগে গত ৯ আগস্ট  ষোড়শ সংশোধনী বাতিল নিয়ে আইন কমিশনে এক সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক বলেন, ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে আপিল বিভাগের রায় অপরিপক্ক, পূর্বপরিকল্পিত ও অগণতান্ত্রিক। এ ছাড়া পূর্ণাঙ্গ রায়ে এমপিদের অপরিপক্ক বলা হয়েছে, যেটা বলার কোনো প্রয়োজন ছিল না। এ রায়ের মাধ্যমে সংসদ সদস্যদের হেয় করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি কি প্রধান শিক্ষক, আর অন্য বিচারপতিরা ছাত্র নাকি যে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের মাধ্যমে তাকে (প্রধান বিচারপতি) অন্য বিচারপতিদের পরিচালনা করতে হবে? সংবিধানের ৯৪(৪) অনুচ্ছেদ অনুসারে বিচারপতিরা সবাই স্বাধীন।

তিনি বলেন, ষোড়শ সংশোধনীর রায়ে সংবিধানের অপব্যাখ্যা করা হয়েছে। তাই সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল ফিরিয়ে আনতে হলে আবারও সংবিধান সংশোধন করতে হবে। সংবিধানে যেহেতু সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল ছিল না, সেহেতু এটা রাখা সংবিধান পরিপন্থী।

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় সম্পর্কে তিনি বলেন,আপিল বিভাগের রায়টি অপরিপক্ব, পূর্বপরিকল্পিত ও অগণতান্ত্রিক।

উল্লেখ্য, গত ১ আগস্ট ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করে আপিল বিভাগের দেয়া রায়ের ৭৯৯ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। গত ৩ জুলাই বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে দিতে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধন বাতিল করে দেওয়া হাইকোর্টের রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন সাত বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। তবে হাইকোর্টের রায়ের কিছু পর্যবেক্ষণ এক্সপাঞ্জ করে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল সর্বসম্মতভাবে খারিজ করার রায় ঘোষণা করেন প্রধান বিচারপতি।

LEAVE A REPLY