ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি

0
100

নিউজ ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বন্দর নগরী চট্টগ্রাম ও ঝালকাঠি জেলায়।চট্টগ্রামে ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি হিসেবে চট্টগ্রামের সরকারি ও আধাসরকারি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব রকমের ছুটি আপাতত বাতিল করা হয়েছে। এ ছাড়া দুর্যোগ মোকাবেলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার রাতে অনুষ্ঠিত জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব রকমের ছুটি বাতিলের কথা জানান কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন।

এদিকে দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুতি নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। সংকেত বাড়লে সে ক্ষেত্রে করণীয় নির্ধারণে রাতে বৈঠক করে বন্দর উপদেষ্টা কমিটি।

রাত ৮টায় জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভায় জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন জানান, ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় নেওয়া হয়েছে সম্ভাব্য সব ধরনের প্রস্তুতি। এর অংশ হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে উপকূলীয় উপজেলার সব স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও আশ্রয় কেন্দ্রগুলো। ইতোমধ্যে উপজেলা পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা পর্যায়ে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলার পাশাপাশি সব উপজেলায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোলরুম। জেলা কন্ট্রোলরুমের নম্বর হচ্ছে ৬১১৫৪৫।

তিনি জানান, উপকূলীয় এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে, বাংলাদেশ বেতারে সতর্কতা সংকেত বার বার ঘোষণা করা হচ্ছে। সরকারি-বেসরকারিভাবে স্বেচ্ছাসেবকরা ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী উদ্ধার কাজের জন্য ইতোমধ্যে চট্টগ্রামের উপকূলীয় উপজেলাগুলোতে অবস্থান করছেন। জেলা প্রশাসনের ভাণ্ডারে পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ রয়েছে। এ ছাড়া উপকূলীয় উপজেলাগুলোতে শুকনো খাবার পাঠানো হচ্ছে।

সভায় ফায়ার সার্ভিস, আনসার ভিডিপি, রেড ক্রিসেন্ট, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, বিদ্যুৎ, পরিবেশ অধিদফতর, মৎস্য অধিদফতরসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। তারা ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় তাদের সব ধরনের প্রস্তুতির কথা জানান।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আরও উত্তর দিকে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’তে রূপ নেওয়ায় এর আগাম প্রস্তুতি নিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। রাতে অনুষ্ঠিত জরুরি বৈঠকে করণীয় নির্ধারণ করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। তবে বৃহস্পতিবার রাতে ও শুক্রবার পণ্য ওঠা-নামার কাজ চলছে।

এদিকে বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপের কারণে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ প্রভাবে ঝালকাঠিতে দুইদিন ধরে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। আজ শুক্রবার সকাল থেকে কখনো হালকা বাতাস ও মাঝারি ধরণের বৃষ্টিপাত চলছে। এদিকে রোয়ানু মোকাবেলার জন্য গতরাত থেকে ঝালকাঠিতে ব্যাপক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভার আয়োজন করা হয়। এসময় জেলা পর্যায়ে একটি ও জেলার ৪টি উপজেলায় একটি করেসহ মোট পাঁচটি কন্ট্রোলরুম খোলা রাখা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের আওতায় মোট ৪০টি মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়া সভায় জেলার সব সাইক্লোন সেন্টার খোলা রাখা, জেলার ৪টি উপজেলা পরিষদ, ৩২টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ২টি পৌরসভাকে সতর্ক থাকাসহ সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবেলায় সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আজ শুক্রবার ও আগামীকাল শনিবারে সংশ্লিষ্ট সব দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অফিসে উপস্থিত থাকার নির্দেশনাও জারি করা হয়েছে।

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক (অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, সার্বিক) মো. জাকির হোসেন সভায় সভাপতিত্ব করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহম্মদ আবদুর রকিবসহ স্বাস্থ্য বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, শিক্ষা, মৎস্য, ত্রাণ বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি দফতরের কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সরকারি-বেসরকারি সদস্যরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।