কারাদণ্ড হতে পারে নওয়াজ শরিফের!

0
69

shorif_53732_1501446798আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পাকিস্তানের সুপ্রিমকোর্ট শুক্রবার নওয়াজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী পদে অযোগ্য ঘোষণা করলেও এ অযোগ্যতার সময়সীমা কত তার ব্যাখ্যা দেয়া হয়নি।

অধিকাংশ আইন বিশেষজ্ঞ মনে করছেন, এ সময়সীমা আজীবনের জন্য। এ নিয়ে আইনজীবীদের মধ্যে আইনি তথ্য ঘাঁটাঘাঁটি শুরু হয়েছে। এখন আবার অনেকে বলছেন, এ মামলায় নওয়াজের কারাদণ্ড হতে পারে।

পাকিস্তানের এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানায়, ১৯৭৬ সালের জনপ্রতিনিধিত্ব আইন (আরওপিএ) অনুসারে, কোনো সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে করা মিথ্যা অথবা অসত্য ঘোষণার মামলা পাকিস্তানের সংবিধানের ৭৮ অনুচ্ছেদের ‘দুর্নীতি চর্চা’র আওতায় পড়ে।

একই আইনের ৮২ ধারায় বলা হয়েছে, এ ধরনের দুর্নীতির মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তির সর্বোচ্চ শাস্তি হবে ৩ বছরের কারাদণ্ড বা পঁাঁচ হাজার রুপি অর্থ জরিমানা অথবা দু’ধরনের সাজাই হতে পারে।

নওয়াজের ক্ষেত্রে সুপ্রিমকোর্ট আরওপিএ’র ৯৯(এফ) ধারা এবং সংবিধানের ৬২(১)(এফ) অনুচ্ছেদ প্রয়োগ করে তাকে অযোগ্য ঘোষণা করেছে। সংবিধানের ৬২(১)(এফ) অনুচ্ছেদ এবং আরওপিএ’র ৯৯(এফ) ধারা হুবহু এক।

সংবিধানের ৬২ অনুচ্ছেদের ‘এফ’ ধারায় সংসদ সদস্য হওয়ার যোগ্যতার ব্যাখ্যা রয়েছে এবং অযোগ্যতা হিসেবে যোগ্যতার অভাবকে বোঝানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ‘তিনি হবেন জ্ঞানী, ধার্মিক, শিষ্টাচারী, সৎ ও আল্লাহ ভক্ত।’ শুক্রবারের রায় সম্পূর্ণ এ বিধান বলেই হয়েছে।

রায়ে বলা হয়, “সংযুক্ত আরব আমিরাতে ‘ক্যাপিটাল এফজেডই জেবেল আলী’ নামে কোম্পানির কাছ থেকে নেয়া অর্থের বিবরণ নওয়াজ ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত পার্লামেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্রে উল্লেখ করতে ব্যর্থ হয়েছেন, যা আরওপিএ’র ১২(২)(এফ) অধ্যায়ের পরিপন্থী।

হলফনামায় মিথ্যা ঘোষণা দেয়ায় আরওপিএ’র ৯৯(এফ) অধ্যায় এবং ইসলামী প্রজাতান্ত্রিক পাকিস্তান ১৯৭৩-এর সংবিধানের ৬২(১)(এফ) অনুচ্ছেদ মোতাবেক এক নম্বর অভিযুক্ত নওয়াজ শরিফ সৎ নন। যে কারণে তিনি মজলিস-ই-সুরার (পার্লামেন্ট) সদস্য হিসেবে অযোগ্য।”

এরপরই সুপ্রিমকোর্ট নওয়াজের জাতীয় পরিষদের সদস্য পদ খারিজ করতে নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশনা দেন।

কিন্তু রায়ে উল্লেখ করা হয়নি, তিনি কত সময়ের জন্য অযোগ্য হলেন বা তার বিরুদ্ধে আর কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা।

এর আগে মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া বহু আইনপ্রণেতা, বিশেষ করে ২০০৮-১৩ সংসদের সময়ে বেশ কয়েকজন ভুয়া শিক্ষা সনদের জন্য দোষী সাব্যস্ত হন।

এসব মামলায় অনেককে কারাভোগ করতে হয়েছে। নওয়াজের মামলায় স্বৈরশাসক জিয়াউল হকের আমলে প্রণীত শরিয়া আইনের ভিত্তিতেই রায় দিয়েছেন আদালত।

আইন বিশেষজ্ঞদের মতে, এ আইন রাজনৈতিক বিরোধী পক্ষ পরস্পরের বিরুদ্ধে ব্যবহারের সুযোগ নিয়ে আসছে। জিয়াউল হকের আমলের বিতর্কিত আইনসহ আরও কিছু আইন বাদ দিতে সাবেক পিপিপি সরকার সংবিধান সংশোধনের উদ্যোগ নিলেও নওয়াজের মুসলিম লীগ তাতে ভেটো দেয়। শেষ পর্যন্ত সেই আইনেই ফেঁসে গেলেন নওয়াজ। এখন আদালতের হাতে তাকে কারাগারে পাঠানোর সুযোগও রয়ে গেল।

প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ছাড়লেন নওয়াজ : পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ছেড়ে দিলেন দেশটির সদ্য পদচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। রোববার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত বাসভবনটি ছেড়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পাঞ্জাবের মুরি শহরের উদ্দেশে যাত্রা করেন তিনি। সঙ্গে রয়েছেন তার স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ, মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ ও মেয়ে জামাই ক্যাপ্টেন অব. সফদার আওয়ান। বাসভবন ছাড়ার আগে এর দেখভালকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থেকে বিদায় নেন নওয়াজ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী ইসহাক দার।

প্রধানমন্ত্রী পদে নির্বাচন আগামীকাল : পাকিস্তানে অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহ্বান করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মামনুন হুসাইন। মঙ্গলবার ওই অধিবেশন বসছে।

নওয়াজের পদত্যাগের পর ক্ষমতাসীন দল পিপলস মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) তার ভাই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য মনোনীত করে।

কিন্তু তিনি প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য না হওয়ায় অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করতে হচ্ছে। দেশটির অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন পিএমএল-এনের নেতা শহিদ খোকন আব্বাসি। প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের এক সূত্র জানায়, ১ আগস্ট মঙ্গলবার বেলা ৩টায় অধিবেশন বসছে। অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করাই এ অধিবেশনের একমাত্র এজেন্ডা।

প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জাতীয় পরিষদ সচিবালয়ে রোববার বেলা ৩টা পর্যন্ত পাওয়া গেছে। সোমবার দুপুর ২টার মধ্যে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে। বেলা ৩টায় মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করবেন জাতীয় পরিষদের স্পিকার আয়াজ সাদিক। পাকিস্তানের বিরোধী দলগুলো অবশ্য পিএমএল-এনের প্রার্থীর বিরুদ্ধে জোটবদ্ধ প্রার্থী দেয়ার কথা ভাবছে। তবে ৩৪২ আসনের জাতীয় পরিষদে নওয়াজের দল পিএমএল-এনের ২০৯ আসন রয়েছে। তাই তাদের প্রার্থী খোকন আব্বাসি অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেনÑ এটা প্রায় নিশ্চিত।

রিভিউয়ের প্রস্তুতি: সুপ্রিমকোর্টের রায়ে রিভিউ আবেদনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন নওয়াজের আইনজীবীরা। কিন্তু নওয়াজের লিগ্যাল টিম যখন সুপ্রিমকোর্টের সিদ্ধান্তকে পর্যালোচনা করবে, তখন তাদের মামলার একটি প্রধান দিক খুলে যেতে পারে যে নওয়াজকে বৃহৎ বেঞ্চের সামনে তার অবস্থান ব্যাখ্যা করার সুযোগ দেয়া হয়নি। কয়েকটি সুত্র বলছে, নওয়াজ শরিফের জন্য চমকপ্রদ কিছু অপেক্ষা করছে।

যদিও তারা ধারণা করেছিলেন যে, পানামা পেপারস মামলার অভিযোগের মাত্রার ভিত্তিতে দুর্নীতির রেফারেন্সগুলো অ্যাকাউন্টিবিলিটি আদালতে পাঠানো হবে। যদিও এ ব্যাপারে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। সম্ভবত বিচারপতি ইজাজ আফজাল খানের নেতৃত্বে তিনজন বিচারপতির বেঞ্চ বাস্তবায়নের আগে শরিফ পরিবারের প্রতিনিধিত্বকারী একই আইনি দলকে ২৭ জুলাইয়ের রায়কে পুনর্বিবেচনা করার জন্য বলা হতে পারে। নওয়াজের সমর্থকদের মতে, ক্যাপিটল এফজেডই ইস্যুতে ৫ বিচারকের বিস্তারিত শোনা উচিত ছিল।

তারা আরও বিশ্বাস করেন যে বৃহৎ বেঞ্চে তলবের আগে আদালত নওয়াজের অবস্থান ব্যাখ্যা করার সুযোগ দেননি।

রায় পুনর্বিবেচনার আহ্বান ডনের : বিতর্কিত রায়কে পুনর্বিবেচনার জন্য সুপ্রিমকোর্টের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তানের প্রভাবশালী পত্রিকা দ্য ডন। রোববার পত্রিকাটির এক সম্পাদকীয়তে বলা হয়, সুপ্রিমকোর্টের যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করে রায় দেয়া উচিত, যেটি পরে অপরিপক্ব বা হঠকারী সিদ্ধান্ত হিসেবে গণ্য হয়ে বিতর্কের জš§ না দেয়।

পানামা পেপারস মামলার ক্ষেত্রেও রায়ের তাৎক্ষণিক রাজনৈতিক ও আইনি গ্রহণযোগ্যতার ওপর গুরত্বারোপ করার দরকার ছিল বলে প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন বিচক্ষণ ও দায়িত্ববান ব্যক্তিরা। এখন সংক্ষিপ্ত হলেও বিস্তারিতভাবে চূড়ান্ত রায় দেশের আইনজীবী সমাজ, রাজনৈতিক শ্রেণী এবং নাগরিকরা বিস্তারিত বিশ্লেষণ করেছেন। এ নিয়ে বিশ্লেষক ও স্বাধীন সমালোচকরা দু’ভাগে বিভক্ত। তারা এটা নিশ্চিত যে, নওয়াজ শরিফকে হতাশাজনক সংকীর্ণ আইনি ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে, প্রধান বিচারপতি সাকিব নিসারের উচিত রিভিউ পিটিশন বিবেচনা করা এবং পানামা পেপারস মামলায় ফুলকোর্টে পাঁচ সদস্যের বিচারিক বেঞ্চের চূড়ান্ত রায়কে পর্যালোচনা করা। আশা করা হয়েছিল যে সুপ্রিমকোর্ট একটি সুচিন্তিত ও যৌক্তিক রায় প্রদান করবেন, যা একটি কাম্য এবং সহজে বাস্তবায়নযোগ্য আইন হিসেবে বিবেচ্য হবে।

বস্তুত, এ রায়ের মাধ্যমে নির্বাচিত ব্যক্তিদের জন্য অযোগ্যতার মাপকাঠির প্রয়োগে যে কর্তৃত্ব বজায় রয়েছে, সেটি ব্যাপকভাবে বিস্তৃত এবং সংসদীয় ব্যবস্থায় বিশৃঙ্খলার উৎস হতে পারে। সুপ্রিমকোর্ট নিজেই পর্যালোচনার সুযোগটি নির্ধারণ করতে পারেন। কোনো প্রার্থী মনোনয়ন ফর্মে ভুল তথ্য প্রকাশ করলে তা অযোগ্য ঘোষণা করতে পারে কি? সুপ্রিমকোর্টকে শিগগিরই এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে হবে এবং এসব প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো সুস্পষ্ট করতে হবে।

নওয়াজের বিরুদ্ধে মামলার ঘোষণা: নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে মামলা করার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির সাবেক ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ খুরশিদ খান। অবিলম্বে নওয়াজকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে সরকারের প্রতি রোববার আহ্বান জানান তিনি। এক্সপ্রেস টিবিউন জানায়, ২০১৩ সালের সাধারণ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় স¤‹দের পরিমাণ নিয়ে পার্লামেন্টে মিথ্যে বলার অভিযোগে সংবিধানের ২২ অনুচ্ছেদের আওতায় তার বিরুদ্ধে এফআইআর করা হবে। সোমবার তার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হবে বলে জানান খুরশিদ।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন নওয়াজের ভাতিজা! : পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ দেশটির প্রধানমন্ত্রী হলে তার জায়গায় কে আসছেন, তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। আলোচনায় নাম আসছে তার ছেলে হামজা শরিফ ও তিনজন প্রাদেশিক মন্ত্রীর। শাহবাজ চাইছেন তার ছেলে হামজা শরিফকে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী করতে।

তবে পিএমএল-এন নেতারা বলছেন, শেষ পর্যন্ত কে হবেন মুখ্যমন্ত্রী তা নওয়াজ শরিফই ঠিক করবেন। পাকিস্তানের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন আগামী বছর অনুষ্ঠিত হবে। ওই নির্বাচনের আগে পাঞ্জাবের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের কবজায় রাখতে চাইবেন নওয়াজ। এ কারণেই মুখ্যমন্ত্রী মনোনয়নের সিদ্ধান্ত তার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

পাঞ্জাবের এক জ্যেষ্ঠ আইনপ্রণেতা ডনকে বলেন, ‘শাহবাজ চান তার ছেলে হামজাই হোক পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী। তিনি (হামজা) ইতিমধ্যেই উপমুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। শাহবাজ চান, অন্তর্বর্তী সময়ে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে ছেলে শীর্ষ পর্যায়ে নেতৃত্ব দেয়ার মতো অভিজ্ঞতা অর্জন করুক।’ পাঞ্জাবের এক প্রাদেশিক মন্ত্রী বলেন, হামজা ছাড়াও প্রাদেশিক আইনমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ, তথ্যমন্ত্রী মুজতবা সুজাউর রেহমান ও খাদ্যমন্ত্রী বিলাল ইয়াসিন মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য বিবেচনায় আছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here