কমিউনিটি একটিভিস্ট আবুল হোসেনের ইন্তেকাল

0
108

download (5)নিউইয়র্কঃ মুন্সীগঞ্জ বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইনক এর সাবেক উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক ট্রীস্ট্রিবোর্ড সদস্য আবুল হোসেন হাওলাদার গত ১২ জুলাই, মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন (ইন্নালিল্লাহির ওইন্না লিল্লাহির রাজিউন)।

মৃত্যুকালে তকার বয়স হয়েছিল ৫৮। তিনি তার স্ত্রী এবং দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গেছেন। সপরিবাওে তিনি জ্যামাইকায় বাস করতেন। তার মা, এক ভাই ও এক বোন নিউইয়র্কে এবং বাংলাদেশে অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও শুভাকাক্সক্ষী রেখে গেছেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি কিডনী সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগছিলেন। মঙ্গলবার রাতে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে মাউন্ট সিনাই হসপিটালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তারা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বুধবার বাদ মাগরিব জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে তার জানাজা অষ্ঠিত হয়। পরদিন লং আইল্যান্ডের মেমোরিয়াল কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এদিকে আবুল হোসেন হাওলাাদরের মৃত্যর সংবাদ শুনে তার বাসায় ছুটে আসেন মুন্সিগঞ্জ বিক্রমপুর এসোসিয়েশনের কর্মকর্তাবৃন্দ ও তার শুভাকাক্সক্ষী। এদের মধ্যে রয়েছেন রুহুল আমিন সিদ্দিকী, ইফতেখার জামান রতন, মো: নওশদ হোসেন সিদ্দিক, সিরাজুল ইসলাম খান, মহিউদ্দিন দেওয়ান, আব্দুর রহিম হাওলাদর, মো: শাহদাত হোসনে, আবু রব বাবুল, নাজমুল আলম শ্যামল। আবুল হোসেনের মৃত্যুতে আরো ইমাম সিকদার, মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন, এম এ হান্নান এডভোকেট আজিজুর রহমান, কাজী আজহারুল হক মিলন, মো:নিজাম উদ্দিন মিয়া, মো: হুমায়ুন, হারুন আল রশিদ হ্যানরি, আব্দুল আলিম, মো: শাহ আলম, আব্দুল আউয়াল, মিজানুর রহমান মিন্টু মনির হোসেন, রিপন ফারুকসহ আরো অনেকে।

আবুল হোসেনের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান থানায়। ১৯৫৮ সালে তিনি জন্মগ্রহন করেন। তিনি বিক্রমপুর কেবি মহাবিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ থেকে ভিপি নির্বাচিত দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ১৯৮৮ সালে স্টুডেন্ট ভিসায় তিনি আমেরিকায় আসেন। পড়াশোনা শেষে তিনি ব্যবসা শুরু করেন। একইসাথে তিনি কমিউনিটির বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েছিলেন। পরবতীতে তিনি মুন্সীগঞ্জ বিক্রমপুর এসোসিয়েশন ইনক এর উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ সোসাইটির সাবে ট্রাস্ট্রিবোর্ড সদস্যও ছিলেন। মৃত্যুও আগে তিনি মুন্সিগঞ্জের ইসাপুরা হাইস্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here