ইসরাইলে ফিলিস্তিনিদের ফাঁসি দেয়ার আইন পাস

0
64

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: ফিলিস্তিনিদের ফাঁসির দণ্ড দেয়ার অনুমতি দিয়ে আইন পাস করেছে ইসরাইলের সংসদ ‘নেসেট’। ইসরাইলের ওই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ফিলিস্তিনের কর্মকর্তারা। গত বুধবার ইসরাইলের সংসদে ৫২ ভোটে প্রস্তাবটি পাস হয়। ৪২ জন সদস্য প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অধিকৃত বায়তুল মোকাদ্দাসকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার পর বিশ্বব্যাপী ফিলিস্তিনিদের পক্ষে জনমত সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন দেশ প্রকাশ্যে ফিলিস্তিনের পক্ষে অবস্থান নেয়ার মধ্যেই এ আইন পাস করল ইসরাইল।

এ ছাড়া ইসরাইলি সংসদ গত মঙ্গলবার ঐক্যবদ্ধ বায়তুল মোকাদ্দাসের বিষয়েও আরেকটি প্রস্তাব পাস করে। ওই প্রস্তাব পাসের ফলে পুরো বায়তুল মোকাদ্দাসের ওপর ইসরাইলের কর্তৃত্ব বা দখলদারিত্ব প্রতিষ্ঠিত হবে।

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হুমকি দিয়ে বলেছেন, ফিলিস্তিন স্বশাসন কর্তৃপক্ষ যদি ইসরাইলের সঙ্গে আপস না করে তাহলে তাদের অর্থ সহায়তা বন্ধ করে দেয়া হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট গত ৬ ডিসেম্বর বায়তুল মোকাদ্দাসকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার পর আমেরিকা ও ইসরাইলের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনিদের হামলা বন্ধের জন্য ইসরাইলি সংসদ ফাঁসির দণ্ডের অনুমতি দিয়ে প্রস্তাব পাস করে। এর ফলে সহিংসতা আরো বিস্তার লাভ করেছে। ইসরাইলের যুদ্ধমন্ত্রী এভিগডোর লিবারম্যানের নেতৃত্বাধীন দল ওই প্রস্তাব সংসদে উত্থাপন করেছিল।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ফিলিস্তিনিদের হামলা ঠেকানোর জন্য ইসরাইলের সংসদ ফাঁসির দণ্ড দেয়ার প্রস্তাব পাস করলেও তারা ফিলিস্তিনিদের আন্দোলন ঠেকাতে পারবে না।

ইসরাইলি দৈনিক হারেতজ লিখেছে, সংসদে ওই প্রস্তাব পাসের ফলে হামলার সংখ্যা বেড়ে যাওয়া এবং আন্দোলন আরো বেগবান হওয়ার পাশাপাশি পাশ্চাত্য ও আরব দেশগুলোতেও ইসরাইলের নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থা ‘শাবাক’ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এ কারণে ইসরাইলের জিউস হোম পার্টির প্রধান নাফতালি বেননেট এবং শাবাকের প্রধান নাদাফ আর্গম্যান ওই প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here