ইসরাইলে এবার ‘ফিলিস্তিনি নিষিদ্ধ’ আইন পাস

0
31

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: ফিলিস্তিন ভূখণ্ড থেকে ফিলিস্তিনিদের উৎখাত করতে এতদিন জোরপূর্বক ‘অবৈধ বসতি স্থাপন’ নীতিতে নিজেদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেছে ইসরাইল। এবার পার্লামেন্টে আইন করে ফিলিস্তিনবিরোধী ‘নয়া নীতি’ হাতে নিল ইসরাইল। জেরুজালেমে ফিলিস্তিনিদের বসবাসের অধিকার কেড়ে নিতে বুধবার পার্লামেন্ট নেসেটে নতুন আইন পাস করেছে ইসরাইল।

আইন অনুযায়ী, কোনো ফিলিস্তিনি ইসরাইলকে রাষ্ট্র হিসেবে অস্বীকার করলেই তাকে জেরুজালেমে বসবাস নিষিদ্ধ করতে পারবে কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে মিথ্যা তথ্য প্রদান ও অপরাধকর্মে জড়িত থাকার বিবেচনাতেও ফিলিস্তিনিদের বসবাসের অধিকার কেড়ে নেয়া যাবে। আইনটিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবাধ ক্ষমতা প্রয়োগের সুযোগ দেয়া হয়েছে।

এমনকি তথ্যের সত্য-মিথ্যা বা অপরাধ-নিরপরাধ চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে তাদের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে। আইনটিকে ‘চরম বর্ণবাদী’ আখ্যা দিয়েছে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও)। খবর আলজাজিরার।

ইসরাইল অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমে ৪ লাখ ২০ হাজার ফিলিস্তিনিদের বসবাস। পূর্ব জেরুজালেমকে নিজেদের অবিভাজ্য রাজধানী হিসেবে ইসরাইল দাবি করে এলেও সেখানে জন্ম নেয়া ও বসবাসরত ফিলিস্তিনিদের ইসরাইলি নাগরিকত্ব নেই। শহরটিতে বসবাসরত ফিলিস্তিনিদের ‘স্থায়ী নাগরিক’ আইডি কার্ড এবং অস্থায়ীভাবে জর্ডানের পাসপোর্ট দেয়া আছে।

তাদের সঙ্গে বিদেশি অভিবাসীদের মতো আচরণ করা হয়ে থাকে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পূর্ব জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি না দিলেও ৬ ডিসেম্বর এ স্বীকৃতি দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ নিয়ে এখনও বিশ্বজুড়ে সমালোচনা চলছে। আর তার মধ্যেই এবার জেরুজালেমে ফিলিস্তিনিদের বসবাসের অধিকার কেড়ে নেয়ার সুযোগ রেখে নতুন আইন পাস করল ইসরাইল।

নতুন আইনের আওতায় ইসরাইল রাষ্ট্রকে স্বীকার না করলে যেকোনো ফিলিস্তিনির জেরুজালেমে বসবাসের অধিকার কেড়ে নিতে পারবে ইসরাইলি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষ কাউকে মিথ্যা তথ্যদাতা বা অপরাধকর্মে জড়িত মনে করলেই পাসকৃত আইন অনুযায়ী তাকে এখান থেকে বের করে দিতে পারবে। মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তই এক্ষেত্রে চূড়ান্ত বিবেচিত হবে।

ইসরাইলি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরিয়ে দেরি টুইটারে এক বিবৃতিতে বলেন, এ আইনের আওতায় ইসরাইলিদের ‘নিরাপত্তার সুরক্ষা’ দিতে পারবেন তিনি। পিএলও’র জ্যেষ্ঠ সদস্য হানান আশরাবি নতুন আইনটি নিয়ে ক্ষোভ জানিয়ে একে ‘আইনের চরম বর্ণবাদী নজির’ বলে উল্লেখ করেছেন।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘জেরুজালেম থেকে ফিলিস্তিনিদের বসবাসের অধিকার অনৈতিকভাবে কেড়ে নেয়া এবং নিজেদের শহরে বসবাসরত ফিলিস্তিনিদের অধিকারবঞ্চিত করার মধ্য দিয়ে ইসরাইল সরকার আন্তর্জাতিক আইনকে উপেক্ষা করছে। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন ও মানবিকতাবিষয়ক আইনের লঙ্ঘন করছে তারা।’

LEAVE A