‘আমি বাংলাদেশের নাগরিক, সুন্দরবন ধ্বংস করে বিদ্যুৎ দরকার নাই’

0
115

13891995_842439035856315_1912147032475167300_nনিউজ ডেস্ক: সুন্দরবনের রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছেন এক বিশ্ববিদ্যালয় তরুণী। প্রতিবাদের মাধ্যম হিসেবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ব্যবহার করেছেন তিনি।

এক স্ট্যাটাসে এই শিক্ষার্থী, জন্ম সূত্রে নিজেকে বাংলাদেশের নাগরিক ও সংবিধানের ৭(ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক উল্লেখ করে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদ জানান।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়’র গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী ওই তরুণী লিখেন, “বিদ্যুৎ আমিও চাই কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে আমার বিদ্যুৎ এর দরকার নাই”।

পাঠকের সুবিধার্থে স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো:

“I am Saziya Islam

জন্মসূত্রে বাংলাদেশের একজন নাগরিক এবং সংবিধানের ৭ এর (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দেশের মালিক। আমি রামপাল বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বিদ্যুৎ আমিও চাই কিন্তু সুন্দরবন ধ্বংস করে আমার বিদ্যুৎ এর দরকার নাই। দয়া করে আপনিও এ প্রতিবাদ আমলে নিন।

বি:দ্র: আমরা এখনো সংখ্যায় অনেক কম। ২০০০ জনও যদি লেখে তাহলেই চিন্তাকরুন আমরা একা নই আরও ২০০০ জন। এভাবে এত মানুষের মত আমলে না নিতেও সরকারকে ভাবতে হবে। লেখাটা কপি পেস্ট করে প্রত্যেকের টাইমলাইনে প্রতিবাদেরর আওয়াজ তুলুন। প্রাণপ্রিয় বাংলাদেশকে রক্ষা করুন।

Save Sundarban

No To Rampal

As If The Government Ever Listens”

এদিকে, আজ (৩০ জুলাই) দেশজুড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি। একই সাথে আজ বিকাল সাড়ে ৪ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কেন্দ্রীয়ভাবে বিক্ষোভ করবে রক্ষা কমিটি।

প্রসঙ্গত, ২০১১-এর জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সময় দুই দেশের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক হয়, যাতে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার ভিত্তিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং সঞ্চালনের বিষয়টি ছিল। এরপর রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য ২০১২ সালের ২৯ জানুয়ারি ভারতের ন্যাশনাল থারমাল পাওয়ার করপোরেশনের (এনটিপিসি) সঙ্গে চুক্তি করে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। চুক্তির পর থেকে পরিবেশবিদ ও বিভিন্ন সংঠন এর প্রতিবাদে মানবন্ধন ও বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here