আত্মহত্যা নয়, এবার এগিয়ে যাওয়ার পালা : এভ্রিল

0
8

বিনোদন ডেস্ক: জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল। মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এরই মধ্যে নামটি ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। বিশ্ব সুন্দরী প্রতিযোগিতার ফাইনাল রাউন্ডে বিজয়ী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করা হয়।

কিন্তু পরবর্তীতে নিজের তথ্য গোপন রেখে নিয়ম ভাঙার অভিযোগে আয়োজক কমিটি মুকুট বাতিল ঘোষণা করেন। বুধবার রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রথম রানারআপ জেসিয়াকে মিস ওয়ার্ল্ড ঘোষণা করা হয়।

এর পরই ফেসবুক লাইভে এসে নতুন মুকুটধারীকে শুভ কামনা জানান এভ্রিল। লাইভে এসে কান্নায়ও ভেঙে পড়েন এ সুন্দরী। পরে ফেসবুকে গুজব ছড়ায় মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের শিরোপা হারানোর লজ্জা নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন এভ্রিল। খুব অল্প সময়েই এই গুজবটি ভাইরাল হয়ে যায়।

কিন্তু খবরটি সম্পূর্ণই মিথ্যে বলে প্রমাণিত হয়। এভ্রিল জানান, ‘কিছু মানুষ কোনো এক কারণে আমার পিছু লেগেই আছে। তারা যেন আর আমাকে জীবিতই দেখতে চায় না। নইলে কারও মৃত্যুর মিথ্যে খবরও কী কেউ এভাবে ছড়াতে পারে! আমি মনে করি, আত্মহত্যা করার মতো কিছু হয়নি। অনেক সংগ্রাম করে, অনেক বাধা পেরিয়ে আমি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছি। সাফল্যের পাশাপাশি ব্যর্থতাতেও আমি অভ্যস্ত। হতাশ হয়ে মরে যাওয়ার মতো মেয়ে আমি নই। দেশের অসংখ্য মানুষ, গণমাধ্যমকর্মীরা আমাকে সমর্থন দিয়েছেন। আমাকে সাহস যুগিয়েছেন। সেই সাহসকে অনুপ্রেরণা হিসেবে ধারণ করেই আমি সামনে এগিয়ে যেতে চাই।

এদিকে মুকুট হারালেও বাংলাদেশের মেয়েদের বাল্যবিয়ে রোধ নিয়ে কাজ করার প্রতিজ্ঞা করেছেন এভ্রিল। তার এ কাজে সাহস সমর্থন দিয়েছেন আইসক্রিম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান লাভেলো। প্রতিষ্ঠানটি এভ্রিলকে তাদের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে। ফলে এখন থেকে বাল্যবিয়ে রোধে এভ্রিলের কাজে সহায়তা করবে প্রতিষ্ঠানটি।

এ ছাড়াও যারা এখন এভ্রিলকে নিয়ে সমালোচনা করছেন তাদের উদ্দেশে এ সুন্দরী বলেন,  একটাবারও ভেবেছেন, চারপাশের প্রতিবন্ধকতার সঙ্গে কতটা সংগ্রাম করে আমাকে আজ এ অবস্থানে আসতে হয়েছে। তিলে তিলে নিজেকে তৈরি করেছি। না পেয়েছি বাবা কিংবা পরিবারের সমর্থন। আপনারা আমাকে একটা প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন? ১৬ বছরের একটা মেয়েকে জোর করে বিয়ে দিলে, সেটার কোনো শাস্তি হয় না। বাল্যবিয়ে নিয়ে হাসাহাসি কিংবা ট্রল হয় না। আর একটি ডিভোর্সি মেয়ে ছোটবেলা থেকে সংগ্রাম করে এসে সফল হলে তার শাস্তি নিয়ে কথা বলা হয়। তাকে নিয়ে হাসাহাসি করা হয়। কেন? আপনারা আসলেই অন্যায়ের শাস্তি চান? কাদের জন্য আপনারা ন্যায়বিচার চান?

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের হাইস্পিড লেডি বাইক রাইডার হিসেবে পরিচিত এভ্রিল। মোটরবাইকের বিখ্যাত ইয়ামাহার ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডর তিনি। তবে সবকিছু ছাপিয়ে এভ্রিল আলোচনায় এসেছিলেন মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের বিজয়ী হিসেবে। আলোচনার পাশাপাশি সমালোচিতও বলা যায়।

কারণ, এ আয়োজনটিতে বিজয়ী হলেও প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের প্রথম শর্তই পূরণ করতে ব্যর্থ তিনি। তবে এখন থেকে নতুনভাবে পথ চলবেন বলে জানিয়েছেন। এরই মধ্যে মিডিয়ায় কাজেরও প্রস্তাব এসেছে। তবে এখনই কিছু জানাতে পারছেন না তিনি। ক্যারিয়ার হিসেবে যাই করুক না কেন লক্ষ্য হিসেবে বাল্যবিয়ে রোধের বিষয়টিই সামনে রাখছেন এভ্রিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here