অ্যাপলকে যেভাবে বিব্রত করছে গুগল

0
164

100543how_google_embarrassed_appleচলতি সপ্তাহটি অ্যাপলের জন্য ভালো যায়নি। কারণ গুগলের ডিজিটাল সহকারি গুগল অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাপলের ডিজিটাল সহকারি সিরির চেয়ে বেশি সক্ষমতা প্রদর্শণ করেছে।

আজকাল উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন স্মার্টফোন বানানো অপেক্ষাকৃতভাবে সহজ। তবে আসল চ্যালেঞ্জ হলো অনন্য সব সফটওয়্যার দিয়ে সেটিকে সমৃদ্ধ করা। যা দিয়ে আপনি আরো বেশি কিছু করতে পারবেন।

আর নতুন গুগল অ্যাসিসট্যান্ট সেটাই করে দেখাচ্ছে।

গুগল অ্যাসিসট্যান্ট লক্ষণীয়ভাবে বেশি স্মার্ট এবং সিরির চেয়েও বেশি সক্ষম। যা অ্যাপলের জন্য একটি পুরো দস্তুর বিব্রতকর বিষয়।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) এবং ভয়েস কন্ট্রোলকে তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে পরবর্তী সবচেয়ে বড় পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে অ্যামাজোনের ইকো অনেক আগেই সাফল্য দেখিয়েছে। আর এখন গুগল অ্যাসিসট্যান্ট সাফল্যের পথে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে।

গুগল অ্যাসিসট্যান্ট আরো ভালো। কারণ তা গুগলের বিশাল সংখ্যক পণ্যের নেটওয়ার্ক একত্রিত করে একটি সবজান্তা অ্যাপের মধ্যে পুরছে। ফলে আপনি যতই ক্যালেন্ডার, ছবি এবং জিমেইল এর মতো গুগলের পরিসেবাগুলো ব্যবহার করবেন ততই স্মার্ট হবে গুগল অ্যাসিসট্যান্ট।

এছাড়া প্রতিযোগিতার চেয়ে বরং প্রশ্নের উত্তরদানেই বেশি ভালো করছে গুগল। এছাড়া গুগলের রয়েছে অসংখ্য চিত্তাকর্ষক দক্ষতা যেগুলোর কোনো তালিকা এখনই এখানে হাজির করা সম্ভব নয়।

গুগলে রয়েছে শতশত বিলিয়ন প্রশ্নোত্তর। উইকিপিডিয়ার মতো বিশ্বস্ত সূত্র থেকেও গুগল বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর টেনে আনতে সক্ষম। আপনি যখনই যা জানতে চাইবেন তখনই গুগল তার উত্তর সরবরাহ করতে সক্ষম।

কিন্তু গুগলের পাঁচ বছর আগে যাত্রা শুরু করেও অ্যাপলের ডিজিটাল অ্যাসিসট্যান্ট এখনো একেবারে সাধারণ কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়েও গলদঘর্ম হয়। কিন্তু অ্যাপল তার ডিজিটাল অ্যাসিসট্যান্ট সিরির পারফর্মেন্সের কোনো উন্নয়ন ঘটাতে পারছেনা।

বর্তমানে গুগল অ্যাসিসট্যান্টই সবার চেয়ে এগিয়ে আছে। আর যত বেশি লোকে এটি ব্যবহার করে এর বুদ্ধিমত্তা বাড়িয়ে চলবে ততই এর পরিসর বাড়বে।
সূত্র: বিজনেস ইনসাইডার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here