অসহনীয় যানজট, জনদুর্ভোগ কমানোর ব্যবস্থা করুন

0
376

235636sompa-1কয়েক ঘণ্টায় মাত্র ৩৬ মিলিমিটার বৃষ্টি। তাতেই অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে নগরবাসীকে। এমনিতেই যানজটে প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা কর্মসময় নষ্ট হচ্ছে। যানজট মানুষের জন্য যেমন চরম দুর্ভোগের জন্ম দিচ্ছে, তেমনি দেশের আর্থিক ক্ষতিরও কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। কয়েক বছর আগে একটি জরিপে দেখানো হয়েছে, যানজটের কারণে প্রতিদিন শুধু রাজধানীতেই নষ্ট হচ্ছে ৩২ লাখ ঘণ্টা বাণিজ্যিক সময়। প্রতিদিনের আর্থিক ক্ষতি ২০ হাজার কোটি টাকা। যানজটের সঙ্গে এবার আগাম বৃষ্টিপাতে যুক্ত হয়েছে জলজট। সামনে বর্ষা মৌসুম। ঢাকার রাস্তায় মানুষের ভোগান্তি তখন কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে? রাজধানীতে রাস্তার তুলনায় যানবাহনের সংখ্যা অনেক বেশি। অধিকাংশ এলাকার রাস্তাঘাট সংস্কার চলছে। খোঁড়াখুঁড়ি শুরু হয়েছে। চলছে উড়াল সড়ক নির্মাণের কাজও। তাই যানজট এখন ঢাকাবাসীর নিত্যসঙ্গী। সামান্য বৃষ্টি হলে তা কয়েক গুণ বেড়ে যায়।

বর্ষায় যানজট আর জলজট নগরবাসীর বিড়ম্বনার নতুন কারণ নয়। প্রতিবছরই বর্ষায় জলজটসৃষ্ট অসহনীয় যানজটে চরম যন্ত্রণা দেখা দেয়। কিন্তু প্রতিকারের কোনো উপায় বের করা যাচ্ছে না। ঢাকার পানি নিষ্কাশনব্যবস্থা নিয়েও প্রশ্ন তোলা যেতে পারে। মহানগরীর আয়তন ও জনসংখ্যা বেড়েছে। কিন্তু পানি নিষ্কাশনব্যবস্থা উন্নত হয়নি। লক্ষ করা যায়, প্রতিবছর বর্ষার ঠিক আগে রাজধানীর ড্রেনগুলো পরিষ্কার করার কাজ হাতে নেওয়া হয়। এবারও ঢাকার বিভিন্ন রাস্তার পাশের ড্রেন পরিষ্কার করা হচ্ছে। ময়লা তুলে রাখা হচ্ছে রাস্তার পাশে বা ফুটপাতে। বৃষ্টির পানিতে তা আবার আগের ড্রেনে ফিরে যাচ্ছে বা রাস্তায় জমে থেকে মানুষের ভোগান্তির কারণ হচ্ছে।

মানতে হবে, রাজধানীতে যত্রতত্র পার্কিং করা হয়, ময়লা-আবর্জনা ফেলার ব্যাপারে নাগরিকদের মধ্যে তেমনভাবে সচেতনতা সৃষ্টি করা যায়নি। অনেকেই রাস্তার ওপর খোলা জায়গায় ময়লা ফেলেন, যা বৃষ্টির পানিতে মিশে যায়। কিন্তু উত্তর ও দক্ষিণ ডিসিসি কি এখনো পর্যন্ত ময়লা ফেলার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা দিতে পেরেছে? মেনে নিতে হবে রাজধানীতে প্রয়োজনীয়সংখ্যক রাস্তা নেই। মূল কয়েকটি রাস্তার ওপর নির্ভর করতে হয় নগরবাসীকে। কিন্তু যে সড়ক রাজধানীতে আছে, সেখানে কি শৃঙ্খলা আছে? সড়ক ব্যবস্থাপনায় কি কোনো ত্রুটি নেই?

বাংলাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার হচ্ছে। আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ক্ষেত্র বিস্তৃত হচ্ছে। দীর্ঘদিনের সমন্বয়হীনতা যে মহানগরীকে প্রায় স্থবির অবস্থায় এনে ফেলেছে, এ থেকে মুক্ত হতে প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা। সমস্যা সমাধানে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। মানুষের দুর্ভোগ ও দুর্গতি কী করে কমিয়ে আনা যায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। আমরা আশা করব, জনগণের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা জনদুর্ভোগ দূর করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। অন্যদিকে সড়ক ব্যবস্থাপনা ও শৃঙ্খলা দেখভালের দায়িত্বে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও রাস্তার শৃঙ্খলা ফেরাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here