‘অনুমতি ছাড়াই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার আলামত নষ্ট করা হয়েছে’

0
11

ঢাকা: রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ আয়োজিত সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ভয়াবহ বর্বরোচিত ও নৃশংস গ্রেনেড হামলার ঘটনায় জব্দ করা আলামত আদালতের অনুমতি ছাড়াই নষ্ট ও ধ্বংস করা হয়েছে।

সোমবার রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি সৈয়দ রেজাউর রহমান বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের পক্ষে তার আইনজীবীর যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের সময় আদালতে এ কথা বলেন।

প্রধান কৌঁসুলি আরও বলেন, নিরস্ত্র মানুষের সমাবেশে ভয়াবহ বর্বরোচিত ও নৃশংস গ্রেনেড হামলার মতো ঘটনা শুধু এশিয়া মহাদেশে নয়, পৃথিবীর ইতিহাসেও নেই।

রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে সোমবার বাবরের পক্ষে তার আইনজীবী ষষ্ঠদিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন মঙ্গলবার ফের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য রেখেছেন।

চাঞ্চল্যকর এই গ্রেনেড হামলার ঘটনায় করা দুটি মামলার বিচার বর্তমানে ওই ট্রাইব্যুনালে চলছে। মামলায় এ পর্যন্ত ৪৪ জন আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। সোমবার ছিল যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের ১১০তম দিন।

আদালতে সোমবার বাবরের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন তার আইনজীবী নজরুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে উপস্থিত ছিলেন প্রধান কৌঁসুলি সৈয়দ রেজাউর রহমান ছাড়াও বিশেষ পিপি মো. আবু আবদুল্লাহ্‌ ভূঁইয়া, আকরাম উদ্দিন শ্যামল. ফারহানা রেজা, আমিনুর রহমান প্রমুখ।

মঙ্গলবার ও ও বুধবার দুই দিন আসামিপক্ষে যুক্তি উপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য রয়েছে। বাবরের যুক্তিতর্ক শেষ হলেই মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষ হবে বলে জানিয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ।

সোমবার আসামি বাবরের পক্ষে তার আইনজীবী নজরুল ইসলাম এ মামলার রাষ্ট্রপক্ষের ১৫৩তম সাক্ষী আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও ১৫৪তম সাক্ষী মোহাম্মদ শামসুল ইসলামের সাক্ষ্য থেকে যুক্তি খণ্ডন করেন। পাশাপাশি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ২২৫তম সাক্ষী আবদুল কাহ্‌হার আখন্দের সাক্ষ্য থেকেও যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। এক পর্যায়ে মামলার আসামি মুফতি হান্নান ও মাওলানা আবদুস সালামের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির অংশবিশেষের বিরোধিতা করেও যুক্তিতর্ক তুলে ধরেন তিনি। এ সময় আদালতে কারাগারে আটক বাবরসহ মামলার সংশ্নিষ্ট আসামিরা উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আকরাম উদ্দিন শ্যামল সাংবাদিকদের জানান, মামলার মোট ৪৯ আসামির মধ্যে ৪৪ জনের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। এখন আসামি লুৎফুজ্জামান বাবরের যুক্তি শেষ হলেই মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষ হবে। তারপর রাষ্ট্রপক্ষ সমাপনী বক্তব্য উপস্থাপন করার পরই আদালত রায়ের দিন ধার্য করবেন। বাকি চার আসামির যুক্তিতর্ক প্রয়োজন নেই বলেও জানান তিনি।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে দলীয় সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। এ হামলায় দলীয় নেত্রী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here