অকালপ্রয়াত এক নক্ষত্র

0
28

বিনোদন ডেস্ক: সালমান শাহ। ঢাকাই চলচ্চিত্রের এক অমর নায়কের নাম। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর আত্মহত্যা করে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যায় এ মহান নায়ক। যদিও তার মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলতে নারাজ তার ভক্তরা। এ কারণে খুনের মামলাও হয়। মামলাটি এখনও তদন্তনাধীন। আজ এ নায়কের মৃতুবার্ষিকী। দিনটি নিয়ে স্মৃতিচারণেই বুঁদ হয়ে থাকেন তার অগণিত ভক্ত।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের ক্ষণজন্মা এক অমর নায়কের নাম চৌধুরী শাহরিয়ার ইমন ওরফে সালমান শাহ। ১৯৯৩ সালে ক্যারিয়ার শুরু করা এ নায়কের স্থায়িত্ব ছিল মাত্র ৩ বছর।

মৃত্যুর আগে ২৭টি ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। যদিও মৃত্যুর আগে তার সুপারহিট ছবির সংখ্যা ছিল ৩, হিট ছবি ৭ এবং অ্যাভারেজ ছবির সংখ্যা ছিল ৬। কিন্তু মৃত্যুর পর তার ২৭টি ছবিই সুপারহিট তালিকায় নাম লেখায়। তার ভক্তদের মধ্যে কেউ কেউ এতটাই ক্রেজি ছিলেন যে, প্রিয় নায়কের মৃত্যুর খবর সইতে না পেরে নিজেরাও আত্মহত্যা করেন।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের অন্য কোনো নায়কের ভক্তদের ক্ষেত্রে এখনও পর্যন্ত জীবনদায়ী এ আচরণ দেখা যায়নি। তাই প্রিয় নায়কের মৃত্যুকে আত্মহত্যা মানতে নারাজ তারা। এর জন্য কেউ কেউ স্ত্রী সামিরাকে দায়ী করেন। আবার কেউ কেউ চিত্রনায়িকা শাবনূরকে দায়ী করেন। বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলাও চলছে। সেটা বিচারাধীন।

সালমান শাহের মা নীলা চৌধুরী তো বছর কয়েক আগে সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেন, ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত চিত্রনায়ক সালমান শাহের মৃত্যুর জন্য স্ত্রীর পরকীয়া ও চলচ্চিত্রের সিন্ডিকেট দায়ী।

তখন তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘সালমান শাহের স্ত্রী সামিরার পরকীয়া সম্পর্ক এবং চলচ্চিত্রের সিন্ডিকেটের কারণে আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। কারণ সালমান শাহ ছাড়া আর কারও সিনেমা তখন বাজারে চলত না। এতে চলচ্চিত্র অঙ্গনের একটি গ্রুপের শত্রুতে পরিণত হয়েছিল আমার ছেলে।’

সালমান শাহকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘সালমান শাহের শরীরে কোনো ক্ষত চিহ্ন ছিল না যাতে আত্মহত্যা বলে ধরা যায়। খালি ইনজেকশন পুশ করে এবং গলায় চাপ দিয়ে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করা হয়।’

সালমান শাহের স্ত্রী সামিরা এ হত্যার সঙ্গে জড়িত দাবি করে নীলা চৌধুরী বলেন, ‘আমার ছেলে সালমান শাহের স্ত্রী সামিরা ও তার পরিবারকে আমার পাশে কোনো সময় দাঁড়াতে দেখিনি। এমনকি সালমানের ঘরে তার স্ত্রীকেও তার কাছে পাইনি। সামিরা এখন সালমান শাহের এক বন্ধুর স্ত্রী হিসেবে ঘর-সংসার করছে। এটা কি প্রমাণ করে না যে সামিরার পরকীয়া সম্পর্ক ছিল?’ যদিও নীলা চৌধুরীর এসব অভিযোগকে বরাবরই অস্বীকার করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন সামিরা।

গেল বছর আবারও সামিরাকে দায়ী করে আমেরিকা থেকে রুবি চৌধুরী নামে এ নারী ফেসবুকে ভিডিও বার্তার মাধ্যমে দাবি করেন, সালমান শাহের মৃত্যুর বিষয়ে তিনি অনেক কিছু জানেন।

বিষয়টি তিনি বাংলাদেশের তদন্তকারী সংস্থাকে জানাতে চান। তার এ দাবি নিয়ে হৈচৈ পড়ে যায়। পরে আরেক ভিডিও বার্তায় রুবি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান। এবং এ বিষয়ে আর কথা না বলার কথাও বলেন।

অন্তরালের ঘটনা যা-ই থাকুক না কেন সালমান শাহ মারা যাওয়ার দুই দশক পরও এর রহস্য উদঘাটন হয়নি। সিআইডি ও বিচার বিভাগীয় তদন্তে অপমৃত্যু উল্লেখ করে প্রতিবেদন দাখিল করা হলেও তা প্রত্যাখ্যান করেন সালমান শাহের পরিবার।

সর্বশেষ বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দেন সালমান শাহের মা নীলা চৌধুরী। নারাজির আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ ১১ জন তার ছেলে সালমান শাহের হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারেন। এরপর আদালতের নির্দেশে মামলাটি র‌্যাব-৩ এর হাত ঘুরে বর্তমানে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) বিভাগ তদন্ত করছে।

এদিকে সালমান শাহের প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে আজ এফডিসিতে সকাল থেকে কোরআন তেলাওয়াতের ব্যবস্থা করেছে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। বিকালে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের পাশাপাশি গরিব ও অসহায়দের খাবার বিতরণ করা হবে জানিয়েছেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।